hepatities_aj sarabela

দেশীয় ওষুধেই ‘হেপাটাইটিস সি’ নির্মূল

প্রকাশিত :২৮.০৮.২০১৬, ৭:২৯ অপরাহ্ণ

সারাবেলা ডেস্ক: মুখে খাওয়ার দেশীয় ওষুধেই ‘হেপাটাইটিস সি’ শতভাগ নির্মূল হয়। রোববার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সেমিনার সাব কমিটির উদ্যোগে ‘হেপাটাইটিস সি. এন আপডেট’ শীর্ষক মাসিক সেমিনারে বক্তারা এ কথা জানান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সেমিনার সাব-কমিটির সভাপতি ও শিশু হেমাটোলজি ও অনকোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান ডা. চৌধুরী ইয়াকুব জামালের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন ভিসি অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান।

বক্তারা বলেন, বিগত ২-৩ বছর আগেও হেপাটাইটিস সি-এর তেমন কার্যকরী চিকিৎসা ছিলো না। তখন ইজেকশনের মাধ্যমে ওষুধ প্রয়োগ করা হতো। ওই চিকিৎসা ছিলো দীর্ঘ মেয়াদী, ব্যয়বহুল, পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াযুক্ত এবং আরোগ্য লাভের মাত্রা ছিলো সামান্য।

তবে দুই তিন বছরে হেপাটাইটিস সি চিকিৎসায় ব্যাপক পরিবর্তন পরিলক্ষিত হয়। বাংলাদেশে তৈরিকৃত মুখে খাওয়ার ওষুধে হেপাটাইটিস সি ভাইরাস সম্পূর্ণ নির্মূল হয় এবং সি ভাইরাস থেকে রোগীর আরোগ্য লাভের মাত্রাও অনেক বেশি।

এছাড়া মুখে খাওয়ার দেশীয় ওষুধের দাম রোগীদের সাধ্যের মধ্যে এবং রোগীর আরোগ্য লাভে সময়ও আগের থেকে কম লাগে। তাছাড়া এসব ওষুধ পূর্বের তুলনায় অনেকটাই পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াহীন।

সেমিনারে সহযোগী অধ্যাপক ডা. চঞ্চল কুমার ঘোষ বলেন, মুখে খাওয়ার ওষুধে সি ভাইরাস প্রায় শতভাগ নির্মূল করা যায়। আর বাংলাদেশি ওষুধের দাম কম হওয়ায় বিশ্বের ৫০টিরও বেশি দেশে রফতানি হচ্ছে।

সেমিনারে আরো জানানো হয়, ২০৩৬ সালের মধ্যে বাংলাদেশসহ বিশ্ব থেকে হেপাটাইটিস সি ভাইরাস সম্পূর্ণ নির্মূল করা সম্ভব হবে।

সেমিনারে প্যানেল অফ এক্সপার্ট হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. প্রজেশ কুমার রায়, ভাইরোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. শাহিনা তাবাসসুম, কিডনী চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. শহিদুল ইসলাম সেলিম, হেপাটোলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. সেলিমুর রহমান।

সেমিনারে হেপাটাইটিস সি-এর উপর প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. চঞ্চল কুমার ঘোষ ও সহযোগী অধ্যাপক ডা. রাজিবুল আলম।

এসময় সেমিনার সাব কমিটির সহ-সভাপতি (কো- চেয়ারম্যান) সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. আনোয়ারুল করিম, হেপাটোলজী বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাবসহ (স্বপ্নীল) গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি বিভাগ, লিভার (হেপাটোলজি ) বিভাগের শিক্ষক, চিকিৎসক, শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক ও সেমিনার সাব-কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।