চলতে পারবেন পক্ষাঘাতগ্রস্থ রোগী!

প্রকাশিত :১২.১১.২০১৬, ৬:২৪ অপরাহ্ণ

সারাবেলা ডেস্ক : মস্তিষ্কে নতুন ইমপ্ল্যান্ট ব্যবহারের ফলে চলতে সক্ষম হয়েছে পক্ষাঘাতগ্রস্থ বানর। নতুন এই ইমপ্ল্যান্ট মানুষের মস্তিষ্কে ব্যবহারের ফলে পক্ষাঘাতগ্রস্থ মানুষও পুনরায় হাঁটতে চলতে পারবে বলে উচ্চ আশা প্রকাশ করেছেন বিজ্ঞানীরা।

নতুন এই ইমপ্ল্যান্ট মেরুদণ্ডজনিত আঘাতের ফলে পক্ষাঘাতগ্রস্থ বানরের মস্তিষ্কে ব্যবহার করায় সেটি পুনরায় হাঁটতে পারছে বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড মিরর।

ইমপ্ল্যান্টটি মেরুদণ্ডের প্রাইমেট এবং মস্তিষ্কের মধ্যে একটি তারবিহীন সেতু তৈরি করে। অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের নিয়ন্ত্রণ ফিরে পেতে অন্তত দুইটি “ব্রেইন-স্পাইন ইন্টারফেইস” বসিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

রয়টার্স-এর দেওয়া তথ্যমতে সুইস ফেডারেল ইন্সটিটিউট অফ টেকনোলজি-এর নিউরো বিজ্ঞানীরা মনে করছেন পক্ষাঘাতগ্রস্থ মানুষের মস্তিষ্কে এই ইমপ্ল্যান্টের ব্যবহার বেশ “প্রতিশ্রুতিশীল এবং উত্তেজনাপূর্ণ” হতে পারে।

বিজ্ঞানী দলটির সদস্য লাউজেন ইউনিভার্সিটি হসপিটাল-এর জসলাইন ব্লস বলেন, “মস্তিষ্কের ডিকোডিং এবং স্পাইনাল কর্ডের সিমুলেশনের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করা, এই যোগাযোগ ব্যবস্থা তৈরি করা সম্পূর্ণভাবে নতুন। প্রথমবারের মতো আমি ভাবতে পারছি সম্পূর্ণরূপে পক্ষাঘাতগ্রস্থ ব্যক্তি ব্রেইন-স্পাইন ইন্টারফেইসের মাধ্যমে পা নাড়াতে পারছে।”

বানরের ক্ষেত্রে সাফল্য পাওয়া গেলেও মানুষের মস্তিষ্কে এটি ব্যবহারের ক্ষেত্রে এখনও বহু পরীক্ষার প্রয়োজন রয়েছে।

“এই উদ্ভাবন মানুষের চিকিৎসায় ব্যবহারের জন্য কয়েক বছর লাগতে পারে,” বলেন নিউরো বিজ্ঞানী গ্রেগর কোর্টিন।

নতুন এই ইমপ্ল্যান্ট প্রযুক্তিতে বানরের পায়ের নড়াচড়া ধারণ করা হয়। সেটি পরবর্তীতে মস্তিষ্কের ডিভাইস ডিকোড করে বৈদ্যুতিক স্পন্দন তৈরি করে মেরুদণ্ডে সংকেত প্রেরণ করে। যেটি বানরের পায়ের পেশীকে সচল করে এবং তাকে চলতে সক্ষম করে।