পোশাকমালিকদের কষ্টটা বাস্তব, লাভটা সম্ভাবনা: দেবপ্রিয়

প্রকাশিত :২৬.০২.২০১৭, ৬:৫১ অপরাহ্ণ

সারাবেলা ডেস্ক : বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) বিশেষ ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেছেন, রানা প্লাজা দুর্ঘটনার পর কারখানার কর্মপরিবেশ উন্নয়নে প্রচুর অর্থ বিনিয়োগ করতে হচ্ছে পোশাকশিল্পের মালিকদের। শিল্পোদ্যোক্তাদের এ কষ্টটা বাস্তব। তবে লাভটা সম্ভাবনার বিষয়। এটি অর্জন করতে হবে।

আজ রোববার সকালে রাজধানীর ডেইলি স্টার সেন্টারে পোশাকশিল্প নিয়ে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির আরবান ল্যাব ও দ্য ডেইলি স্টার আয়োজিত গোলটেবিল বৈঠকে দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য এসব কথা বলেন। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, গবেষক, ব্যবসায়ী, বিজিএমইএর নেতা ও শ্রমিক অধিকার নিয়ে কাজ করেন, এমন ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, বাংলাদেশের পোশাকশিল্প অভ্যন্তরীণ ও বৈশ্বিক ঝুঁকির মধ্যে দিয়ে এগোচ্ছে। ভবিষ্যতেও এসব ঝুঁকি থাকবে। প্রতিনিয়তই বাংলাদেশ টিকে থাকার সাহস দেখিয়েছে। তিনি আরও বলেন, পোশাকশিল্পের মান, সুরক্ষা, নিরাপত্তা নিশ্চিত করা গেলে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ হবে। সেগুলো হলো উৎপাদনশীলতা বাড়বে, শ্রমিকেরা মজুরি ও মজুরি-বহির্ভূত সুবিধা পাবেন ও মালিকদের মুনাফা হবে।

বিজিএমইএ, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি ও নারায়ণ দাসের সহযোগিতায় রানা প্লাজা দুর্ঘটনা পরবর্তী সংস্কারকাজের অগ্রগতি নিয়ে একটি গবেষণা করেছেন ওয়ামিক মারিয়া ও মাহমুদ হোসেন। ‘পেইন অ্যান্ড গেইন’ নামের ওই গবেষণা প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সান ফ্রান্সিসকো স্টেট ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক মাহমুদ হোসেন।

মাহমুদ হোসেন বলেন, বৈদ্যুতিক, অগ্নি ও ভবনের কাঠামোগত ত্রুটি সংশোধনে পোশাক কারখানাগুলোকে ৩ লাখ ১৯ হাজার ডলার থেকে ৯ লাখ ১০ হাজার মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করতে হচ্ছে। তবে সংস্কারকাজে প্রচুর অর্থ বিনিয়োগের বিপরীতে কোনো কারখানাই ক্রেতা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে বাড়তি ক্রয়াদেশ পাচ্ছে না।

গোলটেবিল বৈঠকে আরও বক্তব্য দেন ডেইলি স্টারের সহযোগী সম্পাদক শাহেদুল আনাম খান, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারম্যান জামিল আজহার ও উপদেষ্টা গোলাম রহমান, সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন, নিউএইজ গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের ভাইস চেয়ারম্যান আসিফ ইব্রাহিম, তৈরি পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সহসভাপতি মাহমুদ হাসান খান, পরিচালক মিরান আলী, মোহাম্মদী গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রুবানা হক, বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) জ্যেষ্ঠ গবেষক নাজনীন আহমেদ, বাংলাদেশ এমপ্লয়ার্স ফেডারেশনের সাবেক সভাপতি কামরান টি রহমান, আওয়াজ ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক নাজমা আক্তার, ইথিক্যাল ট্রেডিং ইনিশিয়েটিভের হেড অব প্রোগ্রাম দেবিই কোটেল প্রমুখ।