ajsarabela
‘বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনি, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলি’ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন অভিনয় শিল্পী অরুনা বিশ্বাস।

‘বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনি, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলি’ এবার হামদর্দ পাবলিক কলেজে

প্রকাশিত :২০.০৪.২০১৭, ৭:৩০ অপরাহ্ণ

ইসলাম মোহাম্মদ রবি : আজ সারাবেলা ও সুচিন্তা ফাউন্ডেশন আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনি, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলি’ শীর্ষক দেশজুড়ে, বছরজুড়ে কার্যক্রমের এবারের আয়োজন ছিল রাজধানীর পান্থপথের হামদর্দ পাবলিক কলেজে। অনুষ্ঠানে অংশ নেয় কলেজের প্রায় দেড়শত শিক্ষার্থী।
অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে মঞ্চ আলোকিত করেন অভিনয় শিল্পী অরুনা বিশ্বাস। আয়োজক ও কলেজ কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, আজকে যার কথা বলতে এসেছি তিনি হচ্ছেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। মুক্তিযুদ্ধের সময় আমি অনেক ছোট, তবুও সে সময়ের ‘জয় বাংলা’ শ্লোগান এখনো আমার কানে বাজে। সবে মাত্র স্কুলে ভর্তি হয়েছি ভারতেশ্বরী হোমস্-এ।

যুদ্ধের প্রস্তুতি অবশ্য অনেক আগে থেকেই চলছিল- আমি যখন স্কুলে ভর্তি হই তখন মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়। স্পষ্ট মনে আছে, টাঙ্গাইল মির্জাপুরের স্কুলে পাকিস্তানী আর্মিরা এসেছিল, কি রকম মেয়েরা আছে তা দেখার জন্যে। ফিডার ছিল হাতে, দাঁড়িয়েছিলাম সবার সামনে। তখন আমার নাম বদলে রাখা হয়েছিল বেবি ইসলাম। আর স্কুলের বড় আপুদের হোস্টেলে রেখে তালা দেওয়া হয়েছিল, যেন তাদের ধরে নিতে না পারে। অনেক অত্যাচার, নির্যাতনের করেছে সে সময় পাকিস্তানীরা। সেই ভয়ংকর অত্যাচার থেকে মুক্তি দিয়ে স্বাধীন দেশ এনে দিয়েছিলেন যিনি, তিনিই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর মত দেশপ্রেমিক দ্বিতীয়জন আছে কিনা আমার জানা নেই। দেশপ্রেমের জলন্ত উদাহরণ বঙ্গবন্ধু। জীবদ্দশায় প্রায় তের বছর জেলখানায় কাটিয়েছেন- শুধুমাত্র দেশ এবং দেশের মানুষের জন্যে। তার অসাম্প্রদায়িক চেতনা, সোনার বাংলার স্বপ্ন এবং সাহস আজ বিশ্ব দরবারে আমাদের মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার ক্ষমতা দিয়েছে, দিয়েছে ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে এগিয়ে যাবার ক্ষমতা।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে একটি দেশের গানও পরিবেশন করেন অরুনা বিশ্বাস- ‘স্বার্থক জনম আমার জন্মেছি এদেশে, স্বার্থক জনম মাগো তোমায় ভালোবেসে’।

‘বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনি, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলি’ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর বর

‘বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনি, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলি’ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর বর

প্রতিবারের মত এবারও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- একজন রণাঙ্গনের বীর মুক্তিযোদ্ধা। আলহাজ আব্দুর রব (এল এম জি)। যুদ্ধ করেছেন ২ নং সেক্টর এলাকায়। এই কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে নিজেকে সৌভাগ্যবান দাবি করে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে যুদ্ধ অভিজ্ঞতার নানান দিক তুলে ধরেন। বক্তব্যের শুরুতে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন বঙ্গবন্ধুকে, স্মরণ করেন জাতীয় চার নেতাকে। ‘ভুট্টোর মাথায় মারো বাংলাদেশ স্বাধীন করো,’ ‘পদ্মা মেঘনা যমুনা তোমার আমার ঠিকানা’সহ মুক্তিযুদ্ধের অনুপ্রেরণামূলক শ্লোগান এবং গান শোনান মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ আব্দুর রব।

অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও দেশপ্রেম নিয়ে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন- হামদর্দ কলেজের প্রিন্সিপাল প্রফেসর মো. সাদেকুর রহমান মজুমদার এবং সমাপনী বক্তব্য প্রদান করেন মো. নজরুল ইসলাম।

‘বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনি, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলি’ অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ‘আজ সারাবেলা’র সম্পাদক জববার হোসেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- এই কার্যক্রমের সমন্বয়ক রবিউল ইসলাম রবি, শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা। আয়োজিত কার্যক্রমের সার্বিক সহযোগিতায় ছিল নীলসাগর গ্রুপ ।