apon

গুলশানে আপন জুয়েলার্সে ফের অভিযান

প্রকাশিত :১৫.০৫.২০১৭, ৭:৩৩ অপরাহ্ণ

সারাবেলা ডেস্ক: শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের যুগ্ম কমিশনার শাফিউর রহমান জানান, রোববার গুলশান এলাকায় সাপ্তাহিক ছুটি থাকায় তাদের সদস্যরা সুবাস্তু টাওয়ারের ওই দোকান সিলগালা করে গিয়েছিলেন। সোমবার সেটি খুলে অভিযান চালানো হচ্ছে।

বনানীতে দুই ছাত্রীকে ধর্ষণের মামলার প্রধান আসামি সাফাত আহমেদের বাবা দিলদার আহমেদ আপন জুয়েলার্সের অন্যতম মালিক। এই পরিবারের বিরুদ্ধে সোনা চোরাচালানের অভিযোগ থাকায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের নির্দেশে একটি অনুসন্ধান কমিটি করে তদন্ত চালাচ্ছে শুল্ক গোয়েন্দা অধিদপ্তর।

এর অংশ হিসেবে রোববার ঢাকায় আপন জুয়েলার্সের পাঁচটি বিক্রয় কেন্দ্রে অভিযান চালান শুল্ক গোয়েন্দারা। সুবাস্তু টাওয়ারে আপনের দোকান সিলগালা করার পাশাপাশি মৌচাক, উত্তরা, জিগাতলার সীমান্ত স্কয়ার এবং গুলশানের ডিসিসি মার্কেটের বিক্রয় কেন্দ্রে থেকে আটক করা হয় ২৮৬ কেজি স্বর্ণালঙ্কার এবং ৬১ গ্রাম হীরা, যার বাজার মূল্য ৮৫ কোটি ৩৮ লাখ টাকা।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মইনুল খান জানান, স্বর্ণ ও রত্ন সংগ্রহের তথ্যে অস্বচ্ছতা এবং মালিকের ‘অবৈধ সম্পদের’ অনুসন্ধানের অংশ হিসেবেই শুল্ক আইনের বিধান অনুসারে ওই অলঙ্কার তারা আটক করেছেন।

‘ব্যাখ্যাহীনভাবে’ সোনা ও হীরার গয়না মজুদের অভিযোগে আপন জুয়েলার্সের মালিকদের তলবও করেছে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ। আগামী ১৭ মে বেলা ১১টায় তাদের কাকরাইলে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের সদরদপ্তরে কাগজপত্রসহ হাজির হতে বলা হয়েছে।

দিলদারের ছেলে সাফাত ও তার বন্ধুরা গত ২৮ মার্চ বনানীর রেইনট্রি হোটেলে জন্মদিনের দাওয়াতে ডেকে নিয়ে দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে ধর্ষণ করে বলে ৬ মে থানায় মামলা হয়। রোববার রেইনট্রি হোটেলে অভিযান চালিয়ে মদ উদ্ধারের পর ওই হোটেলের মালিকদেরও তলব করেছে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ।

সাফাত ও তার বন্ধু সাদমান সাকিফকে সিলেট থেকে বৃহস্পতিবার গ্রেপ্তারের পর রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

 

আ-সা/আমিনা/অপ