hilmot

হেলমুট আর নেই

প্রকাশিত :১৭.০৬.২০১৭, ১:১০ অপরাহ্ণ

সারাবেলা ডেস্ক : আধুনিক জার্মানির ইতিহাসের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ও প্রাক্তন চ্যান্সেলর হেলমুট কোল মারা গেছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৭ বছর৷
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর বিভক্ত জার্মানি এবং ইউরোপীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার অন্যতম স্থপতি ছিলেন তিনি।

গতকাল শুক্রবার জার্মানির রাইনল্যান্ড প্রদেশের লুদভিগহাফেন শহরে নিজ বাসভবনে মারা যান তিনি। বিশ্বব্যাপী হেলমুট কোলকে দুই জার্মানি একত্রীকরণের চ্যান্সেলর বলে অভিহিত করা হয়।
১৯৩০ সালে জন্ম নেওয়া হেলমুট কোল ফ্রাঙ্কফুর্ট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন ও ইতিহাস বিষয়ে পড়াশোনা শেষ করেন ১৯৫০ সালে।স্বজন হারানো আর তারুণ্যে বিশ্বযুদ্ধ দেখা হেলমুট কোল যুদ্ধকে ঘৃণা করতেন।
হেলমুট কোল ১৯৬৯ থেকে ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত জার্মানির রাইনল্যান্ড ফ্যালৎস প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮২ সাল থেকে ১৯৯৮, প্রায় ষোলো বছর তিনি জার্মান চ্যান্সেলরের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তার সময়েই বর্তমান জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল ক্রিশ্চিয়ান গণতান্ত্রিক দলের সাধারণ সম্পাদক ও পরে কোল মন্ত্রিসভায় যোগ দেন।
নব্বই এর দশকে পূর্ব ইউরোপের সমাজতান্ত্রিক দেশগুলিতে অধিকতর গণতন্ত্র আর নাগরিক অধিকারের আন্দোলন শুরু হলে তার ঢেউ এসে লেগেছিল পূর্ব জার্মানিতেও। ১৯৮৯ সালের ৮ নভেম্বর পূর্ব জার্মানির কমিউনিস্ট পার্টির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্যরা পদত্যাগ করার মাধ্যমে ভেঙে পড়েছিল পূর্ব জার্মান সরকার, আর ৯ নভেম্বর ভেঙে যায় বার্লিনকে বিভক্ত করে রাখা আটাশ বছর আগের তৈরি প্রাচীর।
মধ্য ইউরোপে রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের সেই অনিশ্চিত সময়ে জার্মান চ্যান্সেলর হেলমুট কোলর রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও দূর দৃষ্টির কারণে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের চার বিজয়ী মিত্রশক্তি রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সের ক্ষমতাসীন নেতাদের ঐক্যভূত জার্মানির প্রয়োজনীয়তা ও আকাঙ্ক্ষার কথা বোঝাতে সক্ষম হয়েছিলেন।