এমন বিব্রতকর পরিস্থিতি মাটি করে দিতে পারে পুরো ভ্রমণ। ছবি- সংগৃহীত
এমন বিব্রতকর পরিস্থিতি মাটি করে দিতে পারে পুরো ভ্রমণ। ছবি- সংগৃহীত

বিমানবন্দরের বিব্রতকর চেকিং!!!!

প্রকাশিত :১৩.০৭.২০১৭, ৩:১৯ অপরাহ্ণ

সারাবেলা ডেস্ক : নতুন একটি দেশে যখন আমরা ভ্রমণ করি তখন সেই দেশের যে জায়গার সাথে আমাদের প্রথম পরিচয় হয় তা হল অই দেশের বিমানবন্দর। বিমানবন্দরে আপনাকে আপাদমস্তক চেকিং এর জন্য আছেন দায়িত্বশীল নিরাপত্তাকর্মী। এই চেকিং খুব সাধারণ থেকে চরম বিব্রতকর হতে পারে। যেহেতু নিরাপত্তাকর্মীর হাতে তখন সব ক্ষমতা এবং তার দায়িত্বই আপনাকে পুরোপুরি পরীক্ষা করা তখন সেই পরীক্ষা আপনার ভ্রমণের সমস্ত আনন্দ মাটি করতে পারে।

কিন্তু অযথাই তারা কাউকে হেনস্থা করেন না। পুরো প্রক্রিয়াটিই নিরাপত্তার জন্য করা হয়। হ্যাঁ, কিছু সুযোগ হয়ত তারা গ্রহণ করেন, কিন্তু সে সুযোগ কোনমতেই যেন তারা পান সে জন্য সতর্ক থাকতে হবে আপনাকেই। জেনে নিন আপনার করণীয়-
প্রথম সতর্কতা ব্যাগ গোছানোতে
আপনার লাগেজটি গোছানোর সময় ভালো করে নিয়মকানুন জেনে নিন। বড় লাগেজে পাওয়ার ব্যাংক ইলেকট্রনিক্স কিছুই বহন করা যাবে না। এগুলো আপনি বহন করতে পারবেন হ্যান্ড লাগেজে। ব্যাগ এমনভাবে গোছান যাতে সহজে চেক করা যায়। হ্যান্ড লাগেজে ছুরি বা ধারালো যে কোন জিনিস, লাইটার, দেয়াশলাই ইত্যাদি বহন করা থেকে বিরত থাকুন।

অস্ত্র বা অস্ত্র সদৃশ যেকোনো জিনিস বহন করা এড়িয়ে চলুন। তরল জাতীয় কিছু বহনের ক্ষেত্রে স্বল্প পরিমানে বা ছোট কৌটো নেওয়ার চেষ্টা করুন। ঔষধ সাথে থাকলে প্রেস্ক্রিপসনটিও নিয়ে নিন। মাদক জাতীয় কোনকিছু ভুলেও নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করবেন না।

অস্বাভাবিক কোন আচরণ করবেন না
বিমানবন্দর বেড়ানোর জায়গা নয়। তাই অযথা ঘুরে বেড়ানো, এখানে সেখানে ছবি তোলা, আপত্তিকর আচরণ করা থেকে বিরত থাকুন। ভুলেও বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে হাসিঠাট্টা করবেন না। ব্যাগে বোমা আছে বা এজাতীয় কোন দুষ্টুমী করবেন না।

অনেক সময় পুরোপুরি নগ্ন হতে বাধ্য করা হয় সন্দেহে পরা যাত্রীকে।

অনেক সময় পুরোপুরি নগ্ন হতে বাধ্য করা হয় সন্দেহে পরা যাত্রীকে।

নিরাপত্তাকর্মীদের সাথে সহযোগী আচরণ করুন
চেকিং এর সময় নিরাপত্তাকর্মীদের সাথে দূর্ব্যবহার করবেন না। তাদেরকে সার্বিক সহযোগিতা দিন।
সানগ্লাস বা মুখ ঢেকে যায় এমন কিছু পরবেন না
বিমানবন্দরে ঢোকার পর মুখ ঢেকে যায় এমন কিছু পরবেন না। সানগ্লাস পরা বা মুখের অনেকটা অংশ ঢেকে রাখা আপনাকে সন্দেহের তালিকায় ফেলতে পারে। তাই সাধারণ পোশাক পরুন।

নিরাপত্তা কুকুর থেকে সাবধান
বিমানবন্দরের নিরাপত্তা কুকুরেরা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। তারা আমাদের বাসার পোষা প্রাণী নয়। অনেকেই যারা কুকুর বিড়াল পোষেন বা ভালোবাসেন তাদের অভ্যাস থাকে এদের যেখানেই দেখা যাক না কেন ছুটে যেয়ে আদর করে আসার। আপনার এই অভ্যাসটি বিপদে ফেলতে পারে আপনাকে। কুকুরটি কোনভাবে আপনাকে সন্দেহজনক মনে করলে চেকিং এ হেনস্থা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এমন অবস্থায় একবার পরলে পালানোর উপায় নেই।

এমন অবস্থায় একবার পরলে পালানোর উপায় নেই।

বেল্ট, ঘড়ি, জ্যাকেট ও জুতা খোলার জন্য তৈরি থাকুন
আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে শুধু ১২ বছরের নিচে ও ৭৫-ঊর্ধ্ব বয়সের ব্যক্তি জুতা ও হালকা জ্যাকেট পরেই নিরাপত্তাকর্মীদের বাধা পার হতে পারবেন। অন্য সবার ক্ষেত্রেই জুতা, ঘড়ি, জ্যাকেট ও বেল্ট খুলতে হবে। তাই লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায়ই এসব খোলার প্রস্তুতি নিয়ে রাখুন। নিরাপত্তাকর্মীদের কাছাকাছি এলে এগুলো খুলে ফেলুন। এতে আপনার কাজও দ্রুত শেষ হবে এবং লাইনও দ্রুত এগোবে।

ব্যস্ত সময় এড়িয়ে চলুন
আপনার পক্ষে যদি সম্ভব হয় তাহলে ফ্লাইটের ব্যস্ত সময়টা এড়িয়ে চলুন। ছুটির দিন, তার আগের দিন বাদে সারা সপ্তাহের অন্যান্য দিন ভ্রমণ করুন। অনেক ঝামেলা কমে যাবে আপনার।