nilsagor logo copy

বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক প্রচার কার্যক্রমে নীলসাগর গ্রুপ

প্রকাশিত :০৬.০৮.২০১৭, ৬:১৬ অপরাহ্ণ

ইসলাম মোহাম্মদ রবি : শুধু মার্চ আর ডিসেম্বর মাস এলেই মুক্তিযুদ্ধের কথা শোনা যায়। পত্রপত্রিকায়, রেডিও, টিভি, অনলাইনে মুক্তিযুদ্ধের লেখা প্রকাশিত হয়, অনুষ্ঠান প্রচারিত হয়। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধতো আমাদের পরিচয়। মুক্তিযুদ্ধকে মনে রাখতে হবে বছরজুড়ে। ‘আজ সারাবেলা’ ও ‘সুচিন্তা ফাউন্ডেশন’ কিশোর তরুণদের মাঝে বঙ্গবন্ধুর জীবন আলেখ্য ও মুক্তিযুদ্ধের প্রচারে যে উদ্দ্যোগ নিয়েছে তাকে অন্তর থেকে সাধুবাদ জানাই। নীলসাগর গ্রুপকেও ধন্যবাদ জানাই, যারা এই প্রচার কার্যক্রমে সহায়তা করে আসছে। কথাগুলো বলছিলেন মাসুদ মাহমুদ খান, বীর মুক্তিযোদ্ধা। যিনি ৯ নং সেক্টরে বীরত্ব ও সাহসিকতার সঙ্গে সম্মুখসমরে অংশ নেন।

‘বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনি, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলি’ শীর্ষক এই প্রচার কার্যক্রমটি ‘আজ সারাবেলা’ ও ‘সুচিন্তা ফাউন্ডেশন’ এর উদ্দ্যোগে গত ১৩ মার্চ ২০১৭ থেকে সারাদেশব্যাপী শুরু হয়।
রাজধানী মিরপুরের হযরত শাহ আলী (র.) মডেল হাই স্কুলের মধ্য দিয়ে যাত্রা শুরু হয় এই প্রচারাভিযানের, যা সারা বছরজুড়ে চলবে বলে জানান আয়োজকরা।

শিক্ষার্থীদের বঙ্গবন্ধুর গল্প বলছেন ডা.আব্দুন নূর তুষার।

শিক্ষার্থীদের বঙ্গবন্ধুর গল্প বলছেন ডা.আব্দুন নূর তুষার।

প্রথম অনুষ্ঠানটিতে অংশ নেন টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব ও নাগরিক টিভি’র সিইও আব্দুন নূর তুষার, সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের পরিচালক ও ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভারসিটির শিক্ষক কানতারা খান ও বঙ্গবন্ধু কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সাব্বির আহমেদ। শিক্ষার্থীদের মাঝে মুক্তিযুদ্ধের গল্প শোনান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক নিয়াজী ময়েজ। উপস্থিত শিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল প্রায় দেড়’শ জন।

‘আজ সারাবেলা’ ও ‘সুচিন্তা ফাউন্ডেশন’ এর যৌথ উদ্দ্যোগে ইতিমধ্যে দশটি অনুষ্ঠান সাফল্যের সঙ্গে সম্পন্ন হয়েছে। রাজধানী ও বিভিন্ন বিভাগীয় জেলা শহরের স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে এই কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে।

দেশজুড়ে, বছরজুড়ে ‘বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনি, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলি’ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন শিক্ষাবিদ আফজালুল হক।

দেশজুড়ে, বছরজুড়ে ‘বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনি, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলি’ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন শিক্ষাবিদ আফজালুল হক।

২৮ মার্চ ছিল ঢাকার বাইরে প্রথম প্রচারাভিযান। যা অনুষ্ঠিত হয় নীলফামারী ক্যাডেট একাডেমিতে। বৃহত্তর রংপুরের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ আফজালুল হক ও মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুস সাত্তার সেখানে অংশ নেন এবং তাদের শ্রদ্ধা স্মারকে সম্মানিত করা হয়।

অনুষ্ঠান সম্পর্কে ‘আজ সারাবেলা’র ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের পরিচালক কানতারা খান বলেন, বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ, মুক্তিযুদ্ধ তিনটি শব্দ, একটি অর্থ। তাই বাংলাদেশকে জানতে হলে, জানতে হবে বঙ্গবন্ধুকে, জানতে হবে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস। কিভাবে গড়ে উঠল অসম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক একটি রাষ্ট্র বাংলাদেশ। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে জাগাতে চাই, জানাতে চাই। চাই এই চেতনা ছড়িয়ে দিতে সারাদেশময়, নতুন প্রজন্ম, তরুণ প্রজন্মের মাঝে। যারা আগামী দিনের বাংলাদেশ।

‘বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনি, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলি’ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন অভিনয় শিল্পী অরুনা বিশ্বাস।

‘বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনি, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলি’ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন অভিনয় শিল্পী অরুনা বিশ্বাস।

‘বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনি, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলি’ প্রচার কার্যক্রম সম্পর্কে নীলসাগর গ্রুপের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী আহসান হাবিব লেলিন বলেন, বাঙালি জীবনে সবচেয়ে বড় অর্জন মুক্তিযুদ্ধ। মুক্তিযুদ্ধের মধ্যে দিয়ে আমরা বাংলাদেশ পেয়েছি। আমাদের শ্লোগান ‘কাজ করি, দেশ গড়ি।’ মুক্তিযুদ্ধের ফসল যে বাংলাদেশ, সেই বাংলাদেশকে আমরা আরও এগিয়ে নিতে চাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়। তাই ‘সুচিন্তা ফাউন্ডেশন’ ও ‘আজ সারাবেলা’র এই মহৎ কার্যক্রমের সঙ্গে আমাদের যুক্ত হওয়া। আমরা চাই তরুণ প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানুক, বাংলাদেশকে জানুক।

এই কার্যক্রমের মাধ্যমে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রদান করা হয় ‘বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ এবং সিআরআই প্রকাশিত কসিক নভেল সিরিজের ‘মুজিব’ বইটি। অনুষ্ঠানটির সমন্বয়কারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন ‘আজ সারাবেলা’র ব্যবস্থাপনা সম্পাদক রবিউল ইসলাম রবি।

ইসলাম মোহাম্মদ রবি : শুধু মার্চ আর ডিসেম্বর মাস এলেই মুক্তিযুদ্ধের কথা শোনা যায়। পত্রপত্রিকায়, রেডিও, টিভি, অনলাইনে মুক্তিযুদ্ধের লেখা প্রকাশিত হয়, অনুষ্ঠান প্রচারিত হয়। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধতো আমাদের পরিচয়। মুক্তিযুদ্ধকে মনে রাখতে হবে বছরজুড়ে। ‘আজ সারাবেলা’ ও ‘সুচিন্তা ফাউন্ডেশন’ কিশোর তরুণদের মাঝে বঙ্গবন্ধুর জীবন আলেখ্য ও মুক্তিযুদ্ধের প্রচারে যে উদ্দ্যোগ নিয়েছে তাকে অন্তর থেকে সাধুবাদ জানাই। নীলসাগর গ্রুপকেও ধন্যবাদ জানাই, যারা এই প্রচার কার্যক্রমে সহায়তা করে আসছে। কথাগুলো বলছিলেন মাসুদ মাহমুদ খান, বীর মুক্তিযোদ্ধা। যিনি ৯ নং সেক্টরে বীরত্ব ও সাহসিকতার সঙ্গে সম্মুখসমরে অংশ নেন। ‘বঙ্গবন্ধুর গল্প শুনি, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বলি’ শীর্ষক এই প্রচার কার্যক্রমটি ‘আজ সারাবেলা’ ও ‘সুচিন্তা ফাউন্ডেশন’…

Review Overview

0