ছাত্রীর শ্লীলতাহানির অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কার

প্রকাশিত :০৭.০৮.২০১৭, ২:৫৮ অপরাহ্ণ

সারাবেলা ডেস্ক : ঢাকার ইডেন কলেজের বর্তমান ও সাবেক দুই ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির পরিবেশ বিষয়ক উপ-সম্পাদক মিজানুর রহমান পিকুলকে সংগঠন থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। ছাত্রলীগের সভাপতি মো. সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস. এম. জাকির হোসাইন স্বাক্ষরিক এক বিবৃতিতে পিকুলকে সাময়িক বহিষ্কারের তথ্য জানানো হয়েছে।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের এক জরুরি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মিজানুর রহমান পিকুলকে (পরিবেশ বিষয়ক উপ-সম্পাদক, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ) দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হলো। সেই সঙ্গে সংগঠন থেকে স্থায়ী বহিষ্কার কেন করা হবে না তা আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে কারণ দর্শাতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তাকে।

এদিকে, গতকাল রোববার ঢাকার চকবাজার মডেল থানায় পিকুলের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ গৃহীত হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন চকবাজার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামীম অর রশিদ তালুকদার। তিনি বলেন, আজ সোমবার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত শেষে মামলা নেওয়া হবে।
লিখিত অভিযোগপত্রে ভুক্তভোগী ইডেন কলেজের সাবেক ছাত্রী বলেন, ‘আজ রবিবার রাত ৮টায় আমি, আমার স্বামী ও ছোট বোন পলাশী মোড়ের মাছবাজারে মাছ কিনতে গিয়েছিলাম। আমার ছোট বোন ইডেন কলেজে ইংরেজি বিভাগে তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী। সেই সময় মিজানুর রহমনা পিকুলও বাজারে ছিলেন। একপর্যায়ে হাঁটতে গিয়ে তার সঙ্গে আমার স্বামী রুহুল আমিনের ধাক্কা লাগে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পিকুল আমার স্বামীকে গালিগালাজ করতে থাকে এবং মারধর করতে উদ্যত হয়।’
অভিযোগপত্রে আরও বলা হয়, ‘আমি ও আমার ছোট বোন প্রতিবাদ করায় পিকুল আমাদের ওপর চড়াও হয়। এরপর সে মোবাইল ফোনে তার অনুসারীদের ডেকে এনে আমাদের দুই বোনের শ্লীলতাহানি করে এবং আমার স্বামীকে মেরে রক্তাক্ত করে। মাছ বাজারের ব্যবসায়ীরা আমাদের সহযোগিতা করতে এলে পিকুল এবং তার অনুসারীরা তাদের ওপরও ক্ষিপ্ত হয়। পরে ঢাবি’র সাবেক শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক রাসেল আহমেদ আমাদের প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছেন।’
পিকুলের বিরুদ্ধে এর আগে চাঁদাবাজি, ছিনতাই এবং সাংবাদিক নির্যাতনসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে বলে জানা গেছে।