car

৬ জেলায় অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট

প্রকাশিত :১০.০৮.২০১৭, ১২:০৪ অপরাহ্ণ

শামীম আহমেদ, বরিশাল: বরিশাল মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি উপর হামলার ঘটনায় মামলা গ্রহণ, হামলাকারীদের গ্রেফতার ও বিচার এবং অঞ্চলিক মহাসড়কে থ্রি হুইলার গাড়ি চলাচল বন্ধের দাবীতে বরিশাল বিভাগের ৬ জেলার ৩৮টি রুটে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট চলছে। এ ধর্মঘটের সাথে কেন্দ্রীয় নথুলাবাদ বাস মালিক সমিতির কোন ধরনের সম্পর্ক নেই।

নথুলাবাদ বাস টারমিনাল থেকে বরিশাল বিভাগের সকল রুট সহ সমগ্র বাংলাদেশে তাদের বাস যথারীতি ভাবে চলাচল করবে বলে জানিয়েছেন জেলা বাস মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ আফতাব হোসেন।

বরিশাল- পটুয়াখালী মিনিবাস মালিক সমিতি ডাকে ধর্মঘটের আওতাধীন জেলা গুলো হলো বরিশাল, ঝালকাঠী, বরগুনা পটুয়াখালী,পিরোজপুর, বাগেরহাটের রুপসা পর্যন্ত।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৬ টা থেকে এ ধর্মঘট চলছে। হঠাৎ করে মিনিবাস মালিক সমিতি ধর্মঘটে চলে যাওয়ার কারনে বৈরী আবহাওয়া আর বৃষ্ঠির মধ্যে চরম র্দর্ভোগের ভিতর পরে যাত্রী সাধারণ।

গতকাল বুধবার বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বরিশাল বিভাগীয় মিনি বাস মলিক ও শ্রমিক সমন্বয় পরিষদের সভা শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেন মিনি বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাওছার হোসেন শিপন। সভায় বরিশাল, ঝালকাঠি, বরগুনা ও পটুয়াখালী জেলার মিনি বাস মালিক ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বরিশাল-পটুয়াখালী বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জানান, গত ৮ আগষ্ট বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কের খয়রাবাদ ব্রীজ এলাকায় বাসে চাদা দাবী করে সন্ত্রাসীরা। এই খবর শুনে বরিশাল-পটুয়াখালী মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি নজরুল ইসলাম খোকন সহ ৫জন ঘটনাস্থলে যান এবং চাদাবাজীর প্রতিবাদ জানান। এসময় চাদাবাজরা তাদের উপর হামলা চালায়। ঘটনায় ৫ জনই্ আহত হন।

এর প্রতিবাদে ওই দিন মেট্রোপলিটন এলাকার বন্দর থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নিতে অস্বিকৃতী জানান বলে তিনি অভিযোগ করেন। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত মামলা নেয়া হয় নি। এমনকি হামলাকারী কাউকে আটকও করা হয় নি।

এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে সরকারি নিশেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে অঞ্চলিক মহাসড়কে থ্রি হুইলার গাড়ি (আলফা-মাহিন্দ্রা, গ্যাস-ব্যাটারী চলিত অটো বাইক, ভাড়ায় চলিত মোটর সাইকেল) চলাচল করছে। অঞ্চলিক মহাসড়কে এসকল যানবাহন চলাচল করায় বাস চালক ও মালিকরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। তাই এ যানবাহন চলচলে প্রশাসনের কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার দাবী করা হয় সভায়।

উপরক্ত দাবী আদায়ের লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে বিভাগের ৬ জেলার ৩৮ রুটে বাস চলাচল বন্ধ রেখে তারা ধর্মঘট পালন করার কথা জানিয়েছিলেন মিনি বাস মালিক ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ জানিয়েছেন।

বরিশাল-পটুয়াখালী মিনিবাস মালিক সমিতির সহ-সভাপতি মো. হুমায়ুন কবিরের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন সাধারণ সম্পাদক কাউছার হোসেন শিপন, ঝালকাঠী বাস মালিক সমিতির সহসভাপতি মাহাবুবল হক দুলাল, বরগুনা বাস মালিক সমিতির ছগির হোসেন, পটুয়াখালী বাস মালিক সমিতির প্রফেসর মো. আজাদ হোসেন, বরিশাল শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ, ঝালকাঠীর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান, বরগুনা শ্রমিক ইউনিয়নের সাহাবুদ্দিন সাবু, পটুয়াখালীর শ্রমিক ইউনিয়নের মাহাবুব আলম রনি প্রমুখ।

এদিকে আজ বরিশাল কেন্দ্রীয় নথুলাবাদ জেলা বাস মালিক সমিতি থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জেলা বাস মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ আফতাব হোসেন জানান বরিশাল রুপাতলী মিনিবাস মালিক সমিতি আজ থেকে যে বাস ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে তার সাথে জেলা বাস মালিক সমিতির কোন সমর্থন বা কোন ধরনের সম্পর্ক নেই। জেলা বাস মালিক সমিতির কোন সদস্য এতে অংশ গ্রহণ করেনি।

বরিশাল বিভাগীয় শহর থেকে সমগ্র বাংলাদেশ সহ জেলার অভ্যন্তরীণ সকল উপজেলার রুটে জেলার বাসগুলো যথারীতি চলাচল করবে।

এছাড়া তিনি সংবাদ কর্মীদের উদ্যেশে বলেন প্রায় সময় দেখা যায় রুপাতলী বরিশাল-পটুয়াখালী মিনিবাস মালিক সমিতির যেকোন ভাল মন্দ বা পরিবহন দূর্ঘটনা সহ ধর্মঘট সংক্রান্ত খবর বাস মালিক সমিতির শিরোনামে প্রকাশিত হবার কারনে জেলা বাস মালিক সমিতিকে বিব্রতর কারন হয়ে দাড়ায়।

বরিশাল বাস মালিক সমিতি বলতে নথুল­বাদ কেন্দ্রীয় বাস টারমিনালকে বোঝানো হয়েছে। রুপাতলী মিনিবাস মালিক সমিতির কোন ঘটনা যেন বাস মালিক সমিতির নামে প্রকাশ না করার জন্য তিনি অনুরোধ জানান।