Farhana11

‘পুলিশকে জানাতে যাবো দেখি তারাও শিস বাজাচ্ছে’

প্রকাশিত :১১.০৮.২০১৭, ৪:২৩ অপরাহ্ণ

সারাবেলা ডেস্ক : মডেল-অভিনেত্রী ফারিয়া শাহরিন পড়াশোনার জন্য বর্তমানে মালয়েশিয়ায় অবস্থান করছেন। হুট করেই নারী অধিকার, নারীদের সীমাবদ্ধতা ইত্যাদি নিয়ে বেশ ক্ষুব্ধ স্বরে ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়েছেন তিনি। জানালেন, ইভ টিজিংয়ের শিকার হয়েছেন।
ফারিয়া লেখেন, ‘আমরা মেয়েরা সবসময় মেয়েই থাকব, আমরা কোনোদিন পুরুষের সমান হতে পারব না। যতই নারী আন্দোলন, হিউম্যান রাইটস, ওমেন রাইটস, নারী পুরুষ সমান বুলি ঝাড়ি না কেন আমরা কোনোদিন অন্যের সমান হতে পারব না। কারণ আমরা শারীরিকভাবে দুর্বল। কষ্ট হয় কথাগুলো বলতে।
রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় যখন কোনো আরব গাড়ি থেকে মাথা বের করে নোংরাভাবে শিস দিয়ে ইশারা করে ডাকে, তখন আমার মতো রগচটা ফারিয়াও মাথা নিচু করে চলে যায়। ইচ্ছা করে গলা টিপে চোখ খুলে টেনে বের করে ফেলি, কিন্তু একটা টু শব্দ করারও সাহস হয় না, ভয় হয় যদি ধরে নিয়ে যায়!
কমপ্লেইন দেব কাকে? ঐ পুলিশও তো গাড়ি থামিয়ে ইশারা করে। আরে আমি তো অ্যাডাল্ট, তিন বছরের ছোট বাচ্চারাই রেহাই পায় না এসব জানোয়ারদের থেকে। এই ছোট বাচ্চাও ওদের হিংস্রতার শিকার। এই অভিশাপ আর কত দিন কত বছর! যাদের ছেলে নেই, তাদের মেয়েরা কি বাপ মা অসুস্থ হলে রাত তিনটায় ওষুধ কিনতে কোনোদিন রাস্তায় নামতে পারবে না? কোনোদিন জোছনা দেখতে, রাত-বিরাতে রাস্তায় বসে টং দোকানে চা খেতে পারবে না?’
কেন এ স্ট্যাটাস? ফারিয়া বলেন, ‘আমি বাসার নিচের রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলাম। তখন একজন আরব আমাকে ফলো করতে থাকে। ভয় পেয়ে আমি একটি দোকানের পাশে গিয়ে দাঁড়ালে সেখানেও গাড়ি থামিয়ে শিস বাজায়। পুলিশকে জানাতে যাবো দেখি তারাও শিস বাজাচ্ছে।’
ফারিয়া আরো বলেন, ‘এখানে আরব ও কালোদের জ্বালায় বাসা থেকে বের হওয়া দায়। তারা যেখানে সেখানে শেয়াল কুকুরের মতো পার্টনার খুঁজতে থাকে।’
আরব বলতে ফারিয়া সৌদি আরবের মানুষদের বোঝাননি। তিনি বলেন, ‘শুধু সৌদি না ইয়েমেন, ওমান ওই অঞ্চলের অনেকেই এরকম করে।’