প্রিয় মুখ আনিসুল হক ও আব্দুন নূর তুষার

প্রকাশিত :০৩.১২.২০১৭, ৬:১৯ অপরাহ্ণ
  • হাসান মাহমুদ বিপ্লব

আনিসুল হককে আমার সমগ্র জীবনে দেখেছি তিনবার। ব্যক্তিগত আনিসুল হক আমার তেমন একটা পরিচিত নন। তিনবার দেখা হবার পেছনে ছিলেন আব্দুন নূর তুষার। আব্দুন নূর তুষার বিতর্কে আমার বড় ভাই। তার বড় ভাই আনিসুল হক।
জীবনে প্রথম আমার সঙ্গে আনিসুল হকের দেখা হয় তার বাসায় ১৯৯৬ সালে। তখন তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশনের নির্বাচনী টকশো ‘সবিনয় জানতে চাই’ অনুষ্ঠানের উপস্থাপকের দায়িত্ব পান। অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে আমন্ত্রণ জানান দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রের সফল মানুষদের। তাদের সঙ্গে তিনি বাংলাদেশের রাজনীতি বিষয় নিয়ে আলোচনা করছিলেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের কাছে অনুষ্ঠানের নানা প্রশ্ন নিয়ে আলোচনা চলছিল। চলছিল গবেষণার কাজ।
অনুষ্ঠানের পর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দীর্ঘ একুশ বছর পর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ফিরে আসে। তারপর দীর্ঘদিন আমার তার সঙ্গে আর দেখা হয়নি।
দীর্ঘ বিরতির পর আবার দেখা হয় যখন তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশনের ঈদের অনুষ্ঠান ‘ঈদের ঢোল’ উপস্থাপনার দায়িত্ব পান। আবারও সকলের সঙ্গে আলোচনা করে অনুষ্ঠানের বিষয়বস্তু তৈরি করছিলেন। সেদিন তার বাসায় বর্তমান সেনাপ্রধানের সঙ্গে আমার প্রথম সাক্ষাৎ লাভ। সম্পর্কে তিনি আনিসুল হকের ছোট ভাই, তখন পদমর্যাদায় বাংলাদেশ সেনাবহিনীর কর্নেল। সেদিন সেনাপ্রধানের অমায়িক ব্যবহার ও সারল্য আমাকে মুগ্ধ করেছিল।
সর্বশেষ আনিসুল হকের সঙ্গে দেখা হয় তার মেয়র হওয়ার আগের সংবাদ সম্মেলনে। আব্দুন নূর তুষার ভাই তখন তার নির্বাচনী প্রচার কমিটির প্রধান। সেই অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের কাছে তিনি তার স্বপ্নের বর্ণনা দিচ্ছিলেন।
মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়- এটা আনিসুল হকের কথা। সেখানে আমি তার মনের বিশালতা সম্পর্কে ধারণা পাই। অনুষ্ঠান শেষে রুবানা হক তার অফিসে আমাদের দুপুরের খাবারের আয়োজন করেন। খেতে খেতে আনিসুল হকের সঙ্গে কথা হয়, সেটায় জীবনে শেষ দেখা।
আমি জানি, আব্দুন নূর তুষারকে তিনি ছোট ভাইয়ের মতো মনে করতেন। আব্দুন নূর তুষার ভাইয়ের হাতে নাগরিক টেলিভিশনের পরিচালনার দায়িত্ব দিয়ে গেছেন। যদি আব্দুন নূর তুষার নাগরিক টেলিভিশনকে আনিসুল হকের মতো বা তার কাছাকাছি নিয়ে যেতে পারেন, তবে আনিসুল হক মেঘমালার অন্যপ্রান্ত থেকে তাকে আশীর্বাদ করবেন। আব্দুন নূর তুষারের এই যুদ্ধে সব সময় আমি তার পাশে না থাকলেও কখনোই বিপরীতে নই।

 

লেখক: আইনজীবী ও সাবেক সভাপতি বিডিএফ