ঘুষ ও মাদকের বিরুদ্ধে সোচ্চার একজন ডিসি বিপ্লব সরকার - Aj SaraBela (আজ সারাবেলা)
তেজগাঁও বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার বিপ্লব সরকার।

ঘুষ ও মাদকের বিরুদ্ধে সোচ্চার একজন ডিসি বিপ্লব সরকার

প্রকাশিত :২০.০২.২০১৮, ১২:১৯ অপরাহ্ণ

ডেস্ক রিপোর্ট: রোববার পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সে অনুষ্ঠিত ত্রৈমাসিক অপরাধ সভায় আইজিপি’র উপস্থিতিতে ডিসি বিপ্লব সরকার মাদক বাণিজ্য বন্ধের প্রতিবন্ধকতা তুলে ধরতে গিয়ে পুলিশের ঊর্ধতন কর্মকর্তাদের ঘুষ লেনদেনের বিষয়ে আইজিপির দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। পাশাপাশি অনেক অপ্রিয় সত্য উচ্চারণ করে পুলিশের ঘুষ বাণিজ্যের প্রতিবাদও করেন।

তিনি বলেন, রেঞ্জ ডিআইজিরা ওসি পদায়নে ২০ থেকে ৫০ লাখ টাকা করে ঘুষ নেন। আবার পুলিশ সুপাররা এসআই, এএসআই ও কনস্টেবল পদায়নে ঘুষ নেন। ফলে এ ঘুষের টাকা উঠাতে গিয়ে ওসি থেকে শুরু করে নিচের পদের সদস্যরা মাদক বাণিজ্যসহ নানা অবৈধ কর্মকাণ্ডে যুক্ত হন। ফলে মাদক বাণিজ্য বন্ধ করা যায় না। ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, মাদক বাণিজ্য বন্ধ করতে হলে ওসি থেকে নিম্নপদে কর্মরতদের পদায়নে ঘুষ লেনদেন বন্ধ করতে হবে।

রোববার এই সভায় আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী সভাপতিত্ব করেন। আইজিপি হিসেবে গত ৩১ জানুয়ারি দায়িত্ব গ্রহণের পর এটি তার প্রথম এ ধরনের সভা। এতে সব পুলিশ কমিশনার, রেঞ্জ ডিআইজি এবং পুলিশ সুপার উপস্থিত ছিলেন।

সভায় ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও জোনের ডিসি বিপ্লব সরকার আরো বলেন, কনস্টেবল পদে নিয়োগেও পুলিশ সুপাররা মোটা অঙ্কের অর্থ গ্রহণ করেন। ফলে শুরুতেই অস্বচ্ছ প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে একজন পুলিশ সদস্য চাকরিতে যোগ দেন। এ ধরনের অবৈধ প্রক্রিয়া বন্ধ করতে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আইজিপির দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

আইজিপি পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বলেন, জনগণের মধ্যে একটি ধারণা রয়েছে, পুলিশের কোনো কোনো সদস্য মাদক বাণিজ্যের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সংশ্লিষ্ট। এতে পুলিশের ইমেজ নষ্ট হচ্ছে। এ ইমেজ পুনরুদ্ধারে পুলিশকে সব ধরনের মাদকের বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান পরিচালনার নির্দেশ দেন। আর যারা মাদক বাণিজ্যের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট তাদের এ পথ থেকে সরে আসতেও কঠোর বার্তা দেন।

সভায় অতিরিক্ত আইজিপি (প্রশাসন ও অপারেশনস) মো. মোখলেসুর রহমান, পুলিশ স্টাফ কলেজের রেক্টর অতিরিক্ত আইজিপি মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান, সিআইডির অতিরিক্ত আইজিপি শেখ হিমায়েত হোসেন, পুলিশ একাডেমির প্রিন্সিপাল মোহাম্মদ নাজিবুর রহমান, র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ, এপিবিএনের অতিরিক্ত আইজিপি সিদ্দিকুর রহমান, রেলওয়ের অতিরিক্ত আইজিপি মোহাম্মদ আবুল কাশেম, ডিএমপির পুলিশ কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া, অতিরিক্ত আইজিপি মো. মইনুর রহমান চৌধুরী, শিল্প পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি আবদুস সালাম, এসবির অতিরিক্ত আইজিপি মীর শহিদুল ইসলাম, অ্যান্টিটেররিজম ইউনিটের অতিরিক্ত আইজিপি মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম এবং ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আজ সারাবেলা/সংবাদ/জাতীয়