সিরিয়ায় বিমানহামলায় আরও ৪২ জন নিহত - Aj SaraBela (আজ সারাবেলা)

সিরিয়ায় বিমানহামলায় আরও ৪২ জন নিহত

প্রকাশিত :১২.০৩.২০১৮, ১:০২ অপরাহ্ণ

ডেস্ক রিপোর্ট: সিরিয়ার পূর্ব ঘোতায় সরকারি বাহিনীর অব্যাহত বিমান হামলায় আরও কমপক্ষে ৪২ জন নিহত হয়েছে। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে এ খবর জানানো হয়েছে।
শহরের প্রধান কেন্দ্রের একটি দৌমার মানবাধিকার কর্মীরা গতকাল রোববার জানান, সিরীয় বাহিনী ঘোতায় বিমান হামলা এখনও বন্ধ করেনি।
সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের খবরে বলা হয়েছে, রোববার মুদেইরা শহরের দখল নিয়েছে সরকারি বাহিনী। এখান থেকে পূর্ব ঘোতার অন্য এলাকাগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব।
খবরে আরও বলা হয়, শনিবার দামেস্কের ১০ কিলোমিটার পূর্বে প্রতিবেশী শহর মেসরাবা দখলে নেওয়ার পর এখন দৌমা ঘিরে রেখেছে সরকারি বাহিনী। এদিকে মুদেইরা দখলের কারণে দৌমা ও হারাসতা শহরের মধ্যে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে।
জাতিসংঘের হিসেব অনুযায়ী, পূর্ব ঘোতায় ৪ লাখ নাগরিক আটকে পড়েছে।
নূর আদম নামের একজন মানবাধিকার কর্মী বলেছেন, রাজধানী দামেস্কের পূর্ব দিকের শহর জোবারে আটজন লোক মারা গেছে। একই হামলায় দৌমায় একই পরিবারের ১৬ জন লোক নিহত হয়েছে। এ ছাড়া হারাসতা, জামালকা ও আরবিন শহরে বাকিদের মৃত্যু হয়েছে।
যুক্তরাজ্যভিত্তিক সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস শনিবার আল জাজিরাকে জানায়, পূর্ব ঘোতা এখন তিন ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। এগুলো হলো দৌমা ও তার আশেপাশের এলাকা, পশ্চিমে হারাসতা এবং বাকি এলাকা দক্ষিণের।
সংস্থাটি জানায়, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া সরকারি বাহিনীর অভিযানে গত ২১ দিনে এখন পর্যন্ত কমপক্ষে এক হাজার ৯৯ জন নিহত হয়েছে। এর মধ্যে ২২৭ জন শিশু ও ১৪৫ জন নারী রয়েছে। এ সময় আহত হয়েছে আরও কমপক্ষে ৪ হাজার ৩৭৮ জন।
এর আগে উদ্ধারকারীদের একটি দল সরকারের বিরুদ্ধে পূর্ব ঘোতা শহরে ক্লোরিন বোমা হামলা চালানোর অভিযোগ করে। তবে এই ধরনের হামলার কথা অস্বীকার করে সিরিয়ার সরকারি বাহিনী।
সিরিয়া এককভাবে কোনো গোষ্ঠী, সরকার বা দলের নিয়ন্ত্রণে নেই। দেশটির উত্তরাঞ্চল রয়েছে পিকেকে, ওয়াইপিজি ও এসডিএফ-এর মতো বিভিন্ন কুর্দি বিদ্রোহী গোষ্ঠীর দখলে। দক্ষিণাঞ্চল শাসন করছে সিরিয়া সরকারের বর্তমান প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ। এ ছাড়া ছড়িয়ে-ছিটিয়ে কিছু অঞ্চল দখল করে রেখেছে কয়েকটি বিদ্রোহী দল ও ইসলামিক স্টেট (আইএস)। এমনই বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত একটি অঞ্চল পূর্ব ঘোতা।
৪০ হাজার বাসিন্দার এই অঞ্চলটি ২০১৩ সাল থেকে অবরোধ করে রেখেছিল সিরিয়ার সরকারি বাহিনী। কারণ আসাদ নিয়ন্ত্রিত রাজধানী দামেস্কের কাছেই বিদ্রোহীদের পূর্ব ঘোতা সরকারের জন্য হুমকি।
এর আগে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যদের ভোটে সর্বসম্মতিক্রমে পূর্ব ঘোতায় ৩০ দিনের যুদ্ধবিরতির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর পরও ওই এলাকায় বিমান হামলা অব্যাহত রেখেছে সিরিয়া সরকার।