খাল দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ - Aj SaraBela (আজ সারাবেলা)

খাল দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ

প্রকাশিত :২১.০৩.২০১৮, ৬:৩৫ অপরাহ্ণ

শামীম আহমেদ, বরিশাল : ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের পার্শ্ববর্তী উজিরপুর উপজেলার সানুহার বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন জয়শ্রী-গৌরনদী-ধামুরা খাল দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করছে কতিপয় প্রভাবশালীরা। ফলে খালের প্রশস্ততা সংকুচিত হওয়ার বোরো চাষের পানির প্রবাহ বিঘ্নিত হওয়ার পাশাপাশি বর্ষা মৌসুমে এ অঞ্চলের কৃষি জমিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, প্রায় শত বছরের পুরনো জনগুরুতপূর্ণ খালের পানি দিয়ে শুষ্ক মৌসুমেও কৃষকরা জমিতে সেচ দিয়ে থাকেন। এলাকার কৃষকদের সেচ সুবিধার জন্য কয়েক বছর পূর্বে সরকারী অর্থায়নে খালটি খনন করা হয়।

সূত্রমতে, খালটি উজিরপুর উপজেলার সানুহার থেকে ধামুরা পর্যন্ত প্রায় আট কিলোমিটার ও জয়শ্রী থেকে গৌরনদীর বাটাজোর পর্যন্ত প্রায় পাঁচ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য। এ খালের সানুহার বাসস্ট্যান্ড সংলগ্নস্থানে কতিপয় প্রভাবশালী অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ কাজ শুরু করায় আগামী বোরো মৌসুমে সেচ সংকটের আশংকা রয়েছে। সূত্রে আরও জানা গেছে, জরুরি ভিত্তিতে অবৈধ দখলকারীদের স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ করা না হলে চাষীদের ফসল উৎপাদন ও স্থানীয়দের পণ্য পরিবহন মারাত্মক হুমকির মুখে পড়বে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সানুহার বাসস্ট্যান্ড সংলগ্নস্থানে প্রবাহমান খালের মধ্যে কংক্রিটের উঁচু আরসিসি ১২টি পিলারের ওপর স্থায়ী স্থাপনা নির্মাণ করা হচ্ছে। দেখলেই মনে হয় বহুতল ভবন নির্মানের উদ্দেশ্যে এ স্থাপনা নির্মাণ করা হচ্ছে। খালের প্রায় পাঁচ শতক জায়গা দখল করে গত দুই সপ্তাহ থেকে ওইস্থানে পাঁচটি পাঁকা দোকানঘর নির্মাণ করছেন স্থানীয় প্রভাবশালী ফিরোজ হাওলাদার, ইকবাল হোসেন, সোহেল, খোকন সিকদার ও দুলাল হাওলাদার। এসব দখলকারীদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের তেমন কোন নজরদারি নেই।

সানুহার গ্রামের একাধিক কৃষকরা বলেন, বিভিন্ন পয়েন্টে দখল করে পাকা ঘর নির্মাণ করায় বর্তমানে খালটি অনেকটাই ছোট হয়ে এসেছে। এইসব পাকা নির্মাণাধীন ভবনের জন্য খালে পানির প্রবাহ কমে গেছে। ফলে বর্ষা মৌসুমে পানি নিস্কাশন ব্যবস্থা ব্যাহত হচ্ছে। দখলকারীরা প্রভাবশালী হওয়ায় কেউ তাদের অবৈধ কাজে বাঁধা দিতে সাহস পাচ্ছেন না।

এ ব্যাপারে উজিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুমা আক্তার বলেন, খাল দখল করে স্থাপনা নির্মাণের বিষয়টি শুনেছি। দ্রুত ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার মাধ্যমে খাল দখলমুক্ত করা হবে।