'গণতন্ত্র ছাড়া উন্নয়নশীল দেশের তকমা পুরোপুরি অর্থহীন' - Aj SaraBela (আজ সারাবেলা)

‘গণতন্ত্র ছাড়া উন্নয়নশীল দেশের তকমা পুরোপুরি অর্থহীন’

প্রকাশিত :২১.০৩.২০১৮, ৭:১৩ অপরাহ্ণ

ডেস্ক রিপোর্ট : ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, যে দেশে গণতন্ত্র নেই, সে দেশে উন্নয়নশীল দেশের তকমা পুরোপুরি অর্থহীন। এটি জনগণের কাজে আসবে না।

তিনি বলেন, আজ দেশে গণতন্ত্র নেই, মানুষের কথা বলার অধিকার নেই। অথচ তকমা লাগানো হয়েছে উন্নয়নশীল দেশের। আসলে উন্নয়নশীল দেশের এ তকমা অর্থহীন। কারণ গণতন্ত্র ছাড়া কখনও সত্যিকারের উন্নয়ন সম্ভব নয়।

প্রধানমন্ত্রী সরকারি খরচে জনসভা করে নৌকার পক্ষে ভোট চাওয়া নির্বাচনী বিধি পরিপন্থী বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ।

বুধবার বিকালে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে বিদেশি কূটনীতিকদের সঙ্গে বৈঠক শেষে মওদুদ আহমদ এ কথা বলেন।

মওদুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী সারা দেশে সরকারি খরচে জনসভা করে বেড়াচ্ছেন, নৌকা মার্কায় ভোট চাইছেন। আর আমাদের কোথাও সভা সমাবেশ তো দূরের কথা রাস্তায় দাঁড়াতেও দিচ্ছে না। প্রধানমন্ত্রী সরকারি খরচে জনসভা করে নৌকার পক্ষে ভোট চেয়ে নির্বাচনী বিধি পরিপন্থী কাজ করছেন।

বিএনপির সিনিয়র এ নেতা বলেন, প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগত খরচে দলীয়প্রধান হিসেবে ভোট চাইতেই পারেন। তবে সমান সুযোগ বিরোধী দলগুলোকেও দিতে হবে। কিন্তু সেটি না করে একজনকে জেলে আটকে রেখেছে, আরেকজন সরকারি খরচে ভোটের অঙ্গীকার আদায় করছেন। অথচ নির্বাচন কমিশনকে অবহিত করলেও তারা কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না।

 

এর আগে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে বিদেশি কূটনীতিকদের সঙ্গে বৈঠক করেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতারা। বুধবার বিকাল সাড়ে ৪টায় এ বৈঠক শুরু হয়ে চলে ৪টা ৫৫ মিনিট পর্যন্ত।

বৈঠকে বিএনপি নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, আবদুল মঈন খান, মির্জা আব্বাস, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু, উপদেষ্টা রিয়াজ রহমান, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, ইসমাইল হোসেন জবিউল্লাহ, নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল, রুমিন ফারহানা প্রমুখ।

বৈঠকে বিদেশি কূটনীতিকদের মধ্যে ছিলেন সুইজারল্যান্ড, স্পেন, সৌদি আরব ও সুইডেনের রাষ্ট্রদূত, যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক সচিব, অস্ট্রেলিয়া, তুরস্ক, জাপান ও নেদারল্যান্ডের ডেপুটি রাষ্ট্রদূত, ইউরোপীয় ইউনিয়নের ডেপুটি চিফ, ইউএসএআইডির কান্ট্রি ম্যানেজার।