স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে সুচিন্তা’র জঙ্গিবাদবিরোধী সেমিনার - Aj SaraBela (আজ সারাবেলা)
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান ড. কামালউদ্দীন আহমেদ। ছবি : তানভীর আলম

স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে সুচিন্তা’র জঙ্গিবাদবিরোধী সেমিনার

প্রকাশিত :১২.০৩.২০১৮, ৪:৪৬ অপরাহ্ণ

রবিউল ইসলাম রবি : ‘জাগো তারুণ্য রুখো জঙ্গিবাদ’ শিরোনামে সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের জঙ্গিবাদবিরোধী বছরব্যাপী কার্যক্রমের ৬ষ্ঠ সেমিনারটি আয়োজন করা হয়েছিল সোমবার রাজধানীর স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি অডিটোরিয়ামে।

অনুষ্ঠানের প্রধান বক্তা ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান ড. কামালউদ্দীন আহমেদ। তিনি বলেন, বাংলাদেশ ধর্মীয় সম্প্রীতির দেশ। ছেলেবেলা থেকেই দেখেছি আমার বাবা নামাজ রোজা করতেন। কিন্তু অন্য ধর্মের মানুষদেরও সম্মান করতেন। সম্প্রদায়িকতা থেকে ধর্মীয় মৌলবাদ, জঙ্গিবাদ বিস্তার লাভ করে। সম্প্রদায়িকতাকে কোনভাবেই প্রশয় দেওয়ার সুযোগ নেই। সেই প্রকৃত মুসলিম যার কাছে অন্য ধর্মের লোকও নিরাপদ। সকল ধর্মের মানুষকে সম্মান করতে হবে।

‘জাগো তারুণ্য রুখো জঙ্গিবাদ’ সেমিনারে শিক্ষার্থীরা। ছবি : তানভীর আলম

তিনি আরও বলেন, নিজের দেশকে, দেশের ইতিহাসকে জানতে হবে। সেই কারণেই মুক্তিযুদ্ধকে জানা জরুরি। আমাদের অনেক গৌরবময় ইতিহাস ঐতিহ্য রয়েছে। রয়েছে নিজস্ব সংস্কৃতি। আমরা বাঙালি মুসলমান, অন্য ধর্মের মানুষদের প্রতি আমরা সবসময়ই সহনশীন।

সাম্প্রতিক সময়ে ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবালের উপর হামলার সমালোচনা ও প্রতিবাদ করে তিনি বলেন, জাফর ইকবাল কখনই ধর্মকে কটাক্ষ করে কোথাও কিছু লেখেননি। বইয়ের নাম ‘ভূতের বাচ্চা সোলায়মান’ এমন অজুহাতে যারা আক্রমণ করেছে তারা আসলে অন্য কারণে তাকে আঘাত করেছে। কেননা তিনি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এবং মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের মানুষ। আশা করি সুষ্ঠু তদন্তে এই হামলার পরিকল্পনাকারীরা বের হয়ে আসবে।

সুচিন্তার ফাউন্ডেশনের ডিরেক্টর ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক কানতারা খান বলেন, জঙ্গিবাদকে তোমাদেরই রুখতে হবে। কাউকে হত্যা করে কেউ কখনও বেহেশতে যেতে পারে না।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন সুচিন্তার ফাউন্ডেশনের ডিরেক্টর ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক কানতারা খান। ছবি : তানভীর আলম

মানুষকে হত্যা করা মহাপাপ। বেহেশত পুন্যের জায়গা। হত্যাকারীদের মত পাপীদের সেখানে জায়গা নেই। ইসলাম কোনভাবেই মানুষ হত্যাকে অনুমোদন করে না। আজকে যারা ধর্মের নামে মানুষ হত্যা করছে, অরাজকতা ও বিশৃঙ্খলতা করছে এরা আসলে কেউই প্রকৃত মুসলিম নয়। রাজনৈতিক সুবিধা নেওয়ার জন্য এরা ধর্মের নাম ব্যবহার করছে ও অপব্যবহার করছে।

আলোচনার শেষে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছিল প্রশ্ন উত্তর পর্ব। এই পর্বে শিক্ষার্থীদের কাছে জঙ্গিবাদ বিষয়ে মতামত জানতে চাওয়া হয়। শিক্ষার্থীরা সকলেই জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও প্রতিরোধের প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। পর্বটি পরিচালনা করেন সুচিন্তার পক্ষ থেকে মোহাম্মদ আলম।

জঙ্গিবাদবিরোধী এই সেমিনারটির সঞ্চালক ছিলেন ‘আজ সারাবেলা’র সম্পাদক, জব্বার হোসেন।

আজসারাবেলা/সংবাদ/জাতীয়/রাজধানী/১২/মার্চ/২০১৮