বরিশালে রিকশা শ্রমিক-মালিক সংগ্রাম কমিটির সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ | Aj SaraBela (আজ সারাবেলা)

এসি, ওসিসহ আহত ২০, আটক ৬
বরিশালে রিকশা শ্রমিক-মালিক সংগ্রাম কমিটির সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ

প্রকাশিত :১৯.০৪.২০১৮, ৩:৪৩ অপরাহ্ণ

শামীম আহমেদ, বরিশাল : বরিশালে রিকশা শ্রমিক-মালিক সংগ্রাম কমিটির সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ ও হাতাহাতির ঘটনায় কোতয়ালী মডেল থানার এসি শাহনাজ পারভীন, থানা ইনচার্জ (ওসি) শাহ মো. আওলাদ হেসেন, এসআই নজরুলসহ ৬ পুলিশসহ আহত ২০ জন।

পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় জেলা বাসদ সদস্য সচিব ডা. মনিষা চক্রবর্তী, সমাজতান্ত্রিক শ্রমীক ফ্রন্ট নেতা এমরান হাবীব রুমনসহ আটক ৬ জন।

কোতয়ালী মডেল থানার এসি শাহনাজ পারভীন বলেন, তারা নগরীর ব্যস্ততম সড়ক ফজলুল হক এ্যাভেনিয় জেলা জজ আদালত প্রাঙ্গণের সড়ক অবরোধ করার চেষ্টা করলে তাদেরকে একাধিক বার বলার পরও তারা ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশের উপর মারমুখি হয়ে উঠে এসময় উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তারা পুলিশের উপর হামলা করে এসময় পুলিশ লাটিচার্জ করে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেওয়া হয়। রিকশা শ্রমিক-মালিক সংগ্রাম কমিটির সদস্যদের হামলায় কোতয়ালী মডেল থানার এসি শাহনাজ পারভীন, থানা ইনচার্জ (ওসি) শাহ মো. আওলাদ হোসেন,এস আই নজরুল, কনষ্টেবল শারমিন, ইভা, সুরমা, ইতি সামিয়াসহ ৬ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে।

এঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদের) জেলা সদস্য সচিব ডা. মনিষা চক্রবর্তী, সমাজতান্ত্রিক শ্রমীক ফ্রন্ট নেতা প্রকৌশলী এমরান হাবীব রুমন, নাররিন আক্তার টুম্পা, মিঠুন চক্রবর্তী, জাকির হোসেন, নুর ইসলামসহ ৬ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। আহত পুলিশ সদস্যরা সবাই হাসপাতাল থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা গ্রহণ করতে হয়।

এব্যাপারে ওসি শাহ মো. আওলাদ হোসেন বলেন, এখন পর্যন্ত কোন মামলা করা হয়নি। এরপূর্বে রিকশা শ্রমিক-মালিক সংগ্রাম কমিটির ব্যানারে অশ্বিনী কুমার টাউন হল চত্বর সদররোডে কর্মসূচি পালন করে।

‘হয় কাজ দেও নতুবা ব্যাটারিচালিত রিকশার লাইসেন্স দাও’ এ শ্লোগান নিয়ে বরিশাল নগরী থেকে ব্যাটারিচালিত রিকশা উচ্ছেদ বন্ধ করাসহ অবিলম্বে লাইসেন্স পাওয়ার দাবি জানিয়ে নগরীতে হাতে বাসুন খোড়া নিয়ে বিক্ষোভ ভূখা মিছিল ও মানববন্ধন প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে ব্যাটারিচালিত রিকশা-শ্রমিক-মালিক সংগ্রাম কমিটি ও সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) শ্রমিক ফ্রন্ট।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় নগরীর প্রাণকেন্দ্র সদররোডে ব্যাটারিচালিত রিকশা শ্রমিক-মালিক সংগ্রাম কমিটির সভাপতি শাজাহান মিস্ত্রির সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তরা বলেন, রিকশা শ্রমিকদের উপর কোন প্রকার নির্যাতন হয়রানী করা হলে লাগাতার রিকশা ধর্মঘট পালন করাসহ কঠোর কর্মসূচি পালন করা হবে।

এসময় তারা আরো বলেন, যারা আজ সিটি কর্পোরেশনে বসে লুটপাট করে খাচ্ছেন তাদেরকে এই শ্রমিকরাই নির্বাচিত করেছে। তাই আগামী সিটি ও জাতীয় নির্বাচনে সাধারণ শ্রমিকরা এদেরকে আর দেখতে চায় না। আগামী নির্বাচনে শ্রমিকদের সঙ্গে লুটপাঠকারীদের সাথে ভোট যুদ্বে লড়াই করার জন্য শ্রমিক সংগঠন প্রস্তুত। সমাবেশ থেকে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন উন্নয়নের নামে শ্রমিকদের পেটে লাথি মেরে প্রতারণা করছেন তা বন্ধ করার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান।

শ্রমিকরা আরো বলেন, অবিলম্বে ব্যাটারিচালিত রিকশা শ্রমিকদের লাইসেন্স প্রদান করা নাহলে শ্রমিকদের আর শান্তিপূর্ণ কর্ম সূচি থাকবে না বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) জেলা সদস্য সচিব ডা. মনিষা চক্রবর্তী, প্রকৌশলী এমরান হাবীব রুমন, বাবুল হাওলাদার, শহিদুল ইসলাম, মিঠুন চক্রবর্তী, অনান্য দাস প্রমি প্রমুখ। পরে রিকশা শ্রমিক-মালিক সংগ্রাম কমিটির সদস্যরা তাদের কোলের দুধের শিশুসহ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে নগরীতে লাল পতাকার এক বিক্ষোভ মিছিল বের করে মিছিল সদররোড, ফজলুল হক এ্যাভেনিয় সড়ক ও সিটি কর্পোরেশন মোড়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। নগরীর ফকির বাড়ি সড়কস্থ বিজ্ঞান মঞ্চ আন্দোলন কার্যলয় শাখা থেকে মিছিল নিয়ে সদররোডে এসে মানববন্ধন বিক্ষোভ সমাবেশ করে।