শেক্সপিয়ারের জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকী আজ - Aj SaraBela (আজ সারাবেলা)
শেক্সপিয়ার। ছবি: সংগৃহিত

শেক্সপিয়ারের জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকী আজ

প্রকাশিত :২৩.০৪.২০১৮, ৩:৪০ অপরাহ্ণ

কিশন জয়সোয়াল: ইংরেজ মহাকবি উইলিয়াম শেক্সপিয়ার ১৫৬৪ সালের ২৩ এপ্রিল স্ট্রাটফোর্ড-আপন-আভন নামক একটি মফস্বল শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তবে তাঁর জন্মতারিখটা অনুমান নির্ভর। স্ট্রাটফোর্ড হলি ট্রিনিটি চার্চে ২৬ এপ্রিল তাঁর ব্যাপ্টিজম হয়, সে প্রমাণ নথিতে আছে। ইংল্যান্ডে তখন যে কোনো শিশু জন্মানোর তিনদিন পর তার ব্যাপ্টিজম বা আকিকা হতো। সে হিসেবে শেক্সপিয়ারের জন্মতারিখ ২৩ এপ্রিল ধরা হয়। এ জন্য এটা গুরত্বপূর্ণ যে শেক্সপিয়ার মারাও যান ২৩ এপ্রিল। সালটা ছিল ১৬১৬।

শেক্সপিয়ারের সময় ইংল্যান্ডের চার্চের ভাষা ছিল ল্যাটিন। সে জন্য শেক্সপিয়ারের জন্ম-নিবন্ধকৃত নাম ছিল গুলিমাস ফিলিয়াস জোহান্স শেক্সপিয়ার। অর্থাৎ, উইলিয়াম হলো জন শেক্সপিয়ারের ছেলে। শেক্সপিয়ারের মায়ের নাম ছিল মেরি আর্ডেন শেক্সপিয়ার। শেক্সপিয়ারের পিতামহ রিচার্ড শেক্সপিয়ার স্ট্রার্টফোর্ডের পাশের গ্রাম স্নিটারফিল্ডে বাস করতেন। তিনি রবার্ট আর্ডেন নামক জনৈক ধনী লোকের বাসায় ভাড়া থাকতেন। এ আর্ডেনের মেয়ে মেরি আর্ডেনকে বিয়ে করেন শেক্সপিয়ারের বাবা জন শেক্সপিয়ার। শেক্সপিয়ার, তাই, বাবার দিক থেকে সাধারণ কৃষক পরিবারের ছেলে হলেও মায়ের দিক থেকে বনেদী পরিবারের ছিলেন। জন শেক্সপিয়ার মেরি আর্ডেনকে বিয়ে করার পর স্ট্রাটফোর্ড-আপন-আভনে বসতি গাড়েন|

বিয়ে ও সন্তান:

১৮ বছর বয়সে শেক্সপিয়র ২৬ বছর বয়সী অ্যানি হ্যাথাওয়েকে বিয়ে করেন। খুবই তাড়াহুড়োর মধ্য দিয়ে তাদের বিবাহ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছিল। কন্যা অ্যানি সুজানা তার প্রথম সন্তান। এর প্রায় দুই বছর পর শেক্সপিয়র দম্পতি হ্যামনেট নামে এক পুত্র ও জুডিথ নামে এক কন্যাসন্তান লাভ করেন। এরা ছিল যমজ। হ্যামনেট মারা যায় এগার বছর বয়সে।

অ্যানি হ্যাথাওয়ে। ছবি: সংগৃহিত

কর্মজীবন ও সাহিত্যকর্ম:

তিনি ছিলেন একাধারে অভিনেতা, নাট্যকার ও কবি। নিজের লেখা নাটকগুলো মঞ্চায়নে নিজের অভিনয়কে গুরুত্ব দিতেন তিনি। অভিনয় আর সাহিত্যকর্মই ছিল তার পেশা-নেশা। শেক্সপিয়রকে ইংরেজি ভাষার সর্বশ্রেষ্ঠ সাহিত্যিক এবং বিশ্বের একজন অগ্রণী নাট্যকার মনে করা হয়। তাকে ইংল্যান্ডের জাতীয় ও চারণকবি হিসেবে আখ্যা দিয়েছিল তৎকালীন যুক্তরাজ্য সরকার। তার রচনাগুলোর মধ্যে রয়েছে ৩৮টি নাটক, ১৫৪টি সনেট, দুটি দীর্ঘ আখ্যান কবিতা ও বেশ কিছু বিশেষ কবিতা।

 

রোমিও এ্যান্ড জুলিয়েট। ছবি: সংগৃহিত

তার রচিত অধিকাংশ নাটক স্থানীয়ভাবে মঞ্চস্থ হয়েছিল ১৫৮৯ থেকে ১৬১৩ সালের মধ্যে। ওথেলো, দ্য কমেডি অব এররস, ম্যাকবেথ, রোমিও অ্যান্ড জুলিয়েট, কিং লিয়ার, জুলিয়াস সিজার, হ্যামলেট প্রভৃতি নাটক তাকে বিশেষ খ্যাতি এনে দেয়।

দি ট্রাজ্যিডি অফ হ্যামলেট। ছবি: সংগৃহিত

তার শেষ জীবন:

কবি ও নাট্যকার হিসেবে শেক্সপিয়রের খ্যাতি ক্রমশই চতুর্দিকে ছড়িয়ে পড়ছিল। বিভিন্ন নাট্যগোষ্ঠীর পক্ষ থেকে তাদের দলভুক্ত হওয়ার জন্য তার কাছে আমন্ত্রণ আসছিল। তিনি ১৫৯৪ সালে লর্ড চেম্বারলিনের নাট্যগোষ্ঠীতে যোগ দিলেন । একদিন যিনি তস্করের মতো স্ট্র্যাটফোর্ড ছেড়ে পালিয়ে এসেছিলেন সেখানেই বিরাট এক সম্পত্তি কিনলেন। এর আগে লন্ডন শহরেও একটি বাড়ি কিনেছিলেন। সম্ভবত ১৬১০ সাল পর্যন্ত এ বাড়িতেই বাস করেছিলেন শেক্সপিয়র। এরপর তিনি অবসর জীবনযাপন করতে চিরদিনের জন্য লন্ডন শহরের কলকোলাহল, প্রিয় রঙ্গমঞ্চ ত্যাগ করে চলে যান স্ট্র্যাটফোর্ডে। ১৬১৬ সালের ২৩ এপ্রিল ৫২ বছর বয়সে স্ট্র্যাটফোর্ডে তার মৃত্যু হয়। আগের দিন একটি নিমন্ত্রিত বাড়িতে গিয়ে প্রচুর পরিমাণে মদ পান করেন। শীতের রাতে পথেই গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। আর সুস্থ হয়ে ওঠেননি তিনি। কথিত আছে জন্মদিনেই তিনি পৃথিবী থেকে চির বিদায় নেন।

শেক্সপিয়রের বিখ্যাত উক্তি:  

“মন যদি প্রস্তুত থাকে তাহলে সব কিছুই প্রস্তুত আছে”

“সবাইকে ভালোবাসুন, খুব কম লোকের উপর ভরসা রাখুন, কারো প্রতিই ভুল কিছু করবেন না”

“সত্যিকার ভালোবাসার পথ কখনোই মসৃণ হয় না”

“পুরো দুনিয়াটাই একটা রঙ্গমঞ্চ, আর প্রতিটি নারী ও পুরুষ সে মঞ্চের অভিনেতা; এই মঞ্চে প্রবেশ পথও আছে আবার বহির্গমণ পথও আছে, জীবনে একজন মানুষ এই মঞ্চে অসংখ্য চরিত্রে অভিনয় করেন”

“অনেক প্রেমদেবতা (কিউপিড) আছেন যারা তীর দিয়ে খুন করেন, আর কিছু আছেন যারা ফাঁদে ফেলে মারেন”“ভালোবাসা হল অসংখ্য উষ্ণ দীর্ঘশ্বাসের সমন্বয়ে সৃষ্ট ধোঁয়াশা”

“ওহে, কেউকি আমাকে শেখাবে কীকরে আমি চিন্তা করা ভুলতে পারি!”

“যন্ত্রণা নাও, নিখুঁত হয়ে ওঠো”

“লোকে বলে অল্প বয়সে বেশি পেকে গিয়ে কেউই কখনো বেশি দিন বাঁচে নি”

“ভালোবাসার আগুনে পানি উষ্ণ হয়, কিন্তু পানি ভালোবাসার আগুন নেভাতে পারে না।”

“সৎ হওয়া মানে দুনিয়ার হাজারো মানুষের ভীড়ে বাছাইকৃত একজন হওয়া”

“উম্মত্ততায়ই জীবনের মহিমা”

“চিন্তা মুক্ত”

“আমি আমার জিহ্বা চেপে ধরে রাখলে তা আমার হৃদয় ভাঙ্গা ছাড়া আর কোনো ভালো ফলই বয়ে আনবে না।”

“আমাকে ভুলে যেও না”

“আমি অনুভব করছি তা চলে গেছে কিন্তু কখন তা আমি জানি না”

 

আজসারাবেলা/কিশন/শিল্প সাহ্যিত্য