'বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনেও মৎস্যসম্পদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে' - Aj SaraBela (আজ সারাবেলা)

আজ থেকে মৎস্য সপ্তাহ শুরু
‘বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনেও মৎস্যসম্পদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে’

প্রকাশিত :২২.০৭.২০১৮, ১০:৫৭ পূর্বাহ্ণ

আজ সারাবেলা রিপোর্ট: জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০১৮ শুরু হচ্ছে আজ (রোববার) থেকে। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও দেশব্যাপী এই সপ্তাহ পালন করা হবে। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথকভাবে বাণী দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি দেশের মৎস্যখাতের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে নিষ্ঠা, দক্ষতা ও আন্তরিকতা সঙ্গে কাজ করতে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, দেশের মৎস্যসম্পদ সংরক্ষণ ও মাছের উৎপাদন বৃদ্ধিতে এ উদ্যোগ সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

আবদুল হামিদ বলেন, নদ-নদী, হাওর-বাঁওড় সমৃদ্ধ বাংলাদেশের আপামর জনসাধারণের পুষ্টি চাহিদা পূরণ, কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও দারিদ্র্য বিমোচনের পাশাপাশি বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে মৎস্যসম্পদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। বর্তমান সরকারের নিরন্তর প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ আজ মিঠাপানির মাছ উৎপাদনে বিশ্বে চতুর্থ।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের বিশাল সমুদ্রসীমা মূল্যবান জলজসম্পদের আধার। এ জন্য তিনি প্রত্যাশা করেন, ব্লু-ইকোনমির এ সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে সামুদ্রিক মৎস্যসম্পদের সংরক্ষণ ও টেকসই আহরণ নিশ্চিতকরণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সমন্বিত ব্যবস্থাপনা ও সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিসহ বর্তমান সরকারের গণমুখী কর্মকাণ্ডের ফলে ইলিশ উৎপাদনে অভাবনীয় সাফল্য অর্জিত হয়েছে। জাতীয় মাছ ইলিশকে আন্তর্জাতিকভাবে ব্রান্ডিংয়ের লক্ষ্যে ভৌগলিক নির্দেশক পণ্য হিসেবে নিবন্ধন করা হয়েছে।

জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে দেশের সকল মৎস্যচাষি ও মৎস্যজীবীসহ মৎস্যখাত সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মাছে-ভাতে বাঙালি- এ ঐতিহ্য পুনরুদ্ধার করে এক সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে মৎস্যখাত উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছে।

উল্লেখ্য, ‘জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-১৮’ ১৮-২৪ জুলাই পালনের কথা থাকলেও অনিবার্যকারণে সময় পরিবর্তন করা হয়। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অনিবার্যকারণে ১৮-২৪ জুলাই এর পরিবর্তে আগামী ২২-২৮ জুলাই ‘জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০১৮’ পালিত হবে।

সরকারের অাগ্রহে ইলিশ উৎপাদনে অভাবনীয় সাফল্য : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সমন্বিত ব্যবস্থাপনা ও সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিসহ বর্তমান সরকারের গণমুখী কর্মকাণ্ডের ফলে ইলিশ উৎপাদনে অভাবনীয় সাফল্য অর্জিত হয়েছে। জাতীয় মাছ ইলিশকে আন্তর্জাতিকভাবে ব্র্যান্ডিংয়ের লক্ষ্যে ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য হিসেবে নিবন্ধন করা হয়েছে। জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ শুরু উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে তিনি এ কথা বলেন। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য ‘স্বয়ংসম্পূর্ণ মাছে দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সমুদ্র বিজয়ের মাধ্যমে সৃষ্ট ব্লু-ইকোনমির বিশাল সম্ভাবনা কাজে লাগানোর লক্ষ্যে আওয়ামী লীগ সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। গবেষণা ও জরিপ জাহাজ ক্রয় করে সামদ্রিক মৎস্য সম্পদের জরিপ কার্যক্রম চলমান রয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘গভীর সমুদ্রে মৎস্য আহরণের লক্ষ্যে প্রথমবারের মতো লং লাইনার ও পার্সসেইনারের মাধ্যমে মৎস্য আহরণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।’

জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে দেশের সকল মৎস্য চাষি ও মৎস্যজীবীসহ মৎস্যখাত সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মাছে-ভাতে বাঙালি – এ ঐতিহ্য পুনরুদ্ধার করে এক সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে মৎস্যখাত উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছে।’

তিনি বলেন, ‘বর্ধিত জনগোষ্ঠীর প্রাণিজ আমিষের চাহিদা পূরণের পাশাপাশি কর্মসংস্থান সৃষ্টি, বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন, নারীর ক্ষমতায়ন ও দারিদ্র্য বিমোচনের মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিতে মৎস্যখাত গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে।’

মৎস্যখাতের সার্বিক উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট সবাইকে আরও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশকে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। বিপুল সম্ভাবনাময় মৎস্যখাত এ লক্ষ্য অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*