শাহনাজ রহমতুল্লাহ কি পেয়েছেন তার প্রাপ্য সম্মান?

  • অজয় দাশ গুপ্ত
    তখন তার নাম ছিলো শাহনাজ বেগম। রেডিও আর সিনেমায় যার গান যার কন্ঠ আমাদেরকে সাগরের তীর থেকে মিষ্টি কিছু ছোঁয়া এনে কপালে ছুঁইয়ে দিতো। গলাটাই এমন যেন তরঙ্গে দুলে দুলে মিলিয়ে যাওয়া সাগরের ঢেউ।

আমরাতো এমন এক জাতি কবিতা, গান, নাটক এমনকি জীবনকেও রাজনীতির বাইরে রাখতে জানি না।

‘আমিতো আমার গল্প বলেছি তুমি কেন কাঁদলে?’ এই গানটি যিনি গেয়েছিলেন সে শাহনাজের কান্নার পথ খুললো রাজনীতি। তখন তিনি শাহনাজ রহমতুল্লাহ। অসাধারণ কয়েকটি দেশের গান ছুঁয়েছে জনচিত্ত। যেমন কথা তেমন সুর। ‘একবার যেতে দে না আমার ছোট্ট সোনার গাঁয়, কিংবা ‘প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ জীবন বাংলাদেশ আমার মরণ বাংলাদেশ’।

ব্যাস। এ দুটি গান কোন কারণে জানি না জেনারেল জিয়ার মনে ধরে গিয়েছিল। আমি নিশ্চিত শাহনাজ রহমতুল্লাহ কখনো তাকে বলেননি যে এগুলো তার বা দলের জন্য গাওয়া গান। মূলত জিয়া ভালো করে বাংলা বলতেও পারতেন না। গান বোঝাতো দূরের কথা। যারা, যুদ্ধে গিয়ে যুদ্ধ না করা, পাকিস্তান ভাঙার জন্য অনুতপ্ত আর ধুরন্ধর মনে করে এই জেনারেলকে ঢাল হিসেবে সামনে এনেছিলো তারাই খাল কেটে কুমীর আনার মতো এ গান দুটো তাকে ধরিয়ে দেয়।

ব্যাস। দক্ষিণ এশিয়ার কিছু দেশের অনুকরণে উদ্ভট সাফারী কালচারে বগল দেখানো দু হাত তুলে তালি আর প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ হয়ে গেলো জাতীয়তাবাদী গান। একসময় ঐ দুটো গান হারিয়ে যেতে যেতে শাহনাজও অচ্ছ্যুত হয়ে গেলেন বুদ্ধিজীবী সমাজে।

আমরা ভুলে গেলাম কনিষ্ঠ ভাই এ দেশের প্রথম আধুনিক ড্যাসিং হিরো জাফর ইকবালের প্রাণ বাঁচাতে পাকিস্তান যাওয়া শাহনাজ রহমতুল্লাহ’র ত্যাগ। ভুলে গেলাম তার আর এক ভাই সুরকার আনোয়ার পারভেজের সুরে গাওয়া জয় বাংলা বাংলার জয় আওয়ামী লীগ তথা বাঙালির মুক্তির গান।

হায় আজ এই গুণী পরিবারের একজনও বেঁচে নেই আর অবহেলা আর,অপমান দগ্ধ শিল্পী শাহনাজ রহমতুল্লাহও শেষ বিদায় নিয়েছেন। এখন স্তুতি, ভালোবাসা, ঘৃণা বা সম্মান কিছুই আর তাকে স্পর্শ করতে পারবে না। শুধু থেকে যাবে তার সোনালী গানের নদী আর বেদনার দীর্ঘশ্বাস।

আজ সারাদিন আমি তারুণ্যে ফিরে যাবো। এমন একটি সুরেলা কন্ঠ যা আমি আর কখনো শুনিনি, আমার কানে কানে শুনিয়ে যাবে-
ফুলের কানে ভ্রমর এসে চুপিচুপি বলে যায়….

পরপারে ভালো থাকুন প্রিয় গায়িকা। নিজ নামের মতো উদারও ভালোবাসাময় থাকুন শাহনাজ রহমতুল্লাহ।

আজসারাবেলা/কলাম/রই/