ধনীদের প্রতি পক্ষপাতিত্ব করা হয়েছে বাজেটে-মেনন

সারাবেলা রিপোর্টঃ বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেছেন, মধ্যবিত্তকে চাপে রেখে ধনীদের প্রতি পক্ষপাতিত্ব দেখিয়েছেন অর্থমন্ত্রী এই বাজেটে। বাংলাদেশের অর্থনীতির সমৃদ্ধির পেছনে যারা মূল শক্তি সেই কৃষক, শ্রমিক, নারী উদ্যোক্তা অবহেলিতই রইলেন।

শুক্রবার বিকালে নারায়গঞ্জ জেলা কমিটির সাধারণ সভায় বক্তব্য দিতে গিয়ে ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া জানান তিনি ।

নগরীর চাষাড়ায় জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাশেদ খান মেনন বলেন, পোশাক শিল্পের মালিকদের জন্য প্রণোদনা বাড়লেও শ্রমিকরা সেই তিমিরেই রইলেন। আর যে কৃষক ধানসহ তার উৎপাদিত ফসলের দাম না পেয়ে জেরবার অবস্থায়, তাদের পণ্যমূল্য সহায়তারও কোনো ব্যবস্থা নেই।

তিনি বলেন, ‘ঋণখেলাপিদের বিশেষ ছাড় দিয়ে জারি করা বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রজ্ঞাপনের প্রতিবাদ করেছিলাম। হাইকোর্ট সেই প্রজ্ঞাপন আটকে দেয়ায় তা এখনও কার্যকর হয়নি। কিন্তু ওই ঘোষণার পরিণতিতেই গত এক মাসে ঋণখেলাপির পরিমাণ ১৭ হাজার কোটি টাকা বেড়ে এক লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে, যা বাজেটের এক পঞ্চমাংশ।’

‘অর্থমন্ত্রী ইচ্ছাকৃত খেলাপিদের ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থার কথা বলছেন। ব্যাংক খাতের সংস্কারের কথাও বলেছেন। কিন্তু সবই ভবিষ্যত বাচক, বর্তমান এখনও ব্যাংক লুটেরা ও খেলাপিদের হাতেই বন্দি।’

দেশের অর্থনৈতিক বৈষম্যের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে মেনন বলেন, কেবল আয় বৈষম্যই নয়, আঞ্চলিক বৈষম্য, গ্রাম-শহরের বৈষম্য অর্থনীতির ভারসাম্য নষ্ট করছে। বাংলাদেশের সম্পদ এখন কেন্দ্রীভূত মুষ্টিমেয় ধনীর হাতে। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে পাকিস্তানের বাইশ পরিবারের বিরুদ্ধে লড়াই করেছিল এদেশের মানুষ। এখন এদেশে ‘সুপার ধনী’-দের সংখ্যা আরও কম। তারাই ক্ষমতার চারপাশে বলয় তৈরি করে রেখেছেন। বঙ্গবন্ধু যে শোষিতের গণতন্ত্রের কথা বলতেন, অর্থনীতির বর্তমান উদারবাদী ধারা তাকে কোন পরিণতি দেবে ২০২১ সালের সুবর্ণজয়ন্তীতে এই বাজেট পাঠে তা বুঝতে কারও অসুবিধা হয় না।

ওয়ার্কার্স পার্টির নেতাকর্মীদের জনজীবনের প্রতিটি ইস্যুতে জনগণকে আন্দোলন ও সংগঠনে ঐক্যবদ্ধ করার আহ্বান জানিয়ে রাশেদ খান মেনন বলেন, দেশের অর্থনীতি ও দেশকে রাহুমুক্ত করতে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রের সাম্য, মানবিক মর্যাদাবোধ ও সামাজিক সুবিচার নিশ্চিতের বিষয়টিকে বিশেষভাবে তুলে ধরতে হবে।

নারায়গঞ্জ ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সভায় দেন জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক হিমাংশু সাহা, আবুল বাশার, মহম্মদ নাসির হোসেন, মাইনুদ্দিন বারী,বাহারউদ্দীন, আবুল হোসেন পাঠান প্রমুখ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.