মন্ত্রণালয়
সেবা ও দক্ষ জনবল দিয়ে বিবেচনা করা হবে হোটেল-রিসোর্ট

সারাবেলা রিপোর্ট: এখন থেকে মন্ত্রণালয় নির্ধারিত সেবার মান নিশ্চিত করে তারকা হোটেল ও রিসোর্টের স্বীকৃতি নিতে হবে। অবকাঠামোসহ বিভিন্ন সেবা ও জনবলের দক্ষতা দিয়ে হোটেল বা রিসোর্টের মান নির্ধারণ করে দেয়া হবে।

এ জন্য ইতোমধ্যে হোটেল রেস্তোরাঁ বিধিমালা সংশোধন করেছে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়।

সংশোধিত বিধিমালায় তারকা মানের হোটেলগুলোতে সেবা ও জনবলের দক্ষতা নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। প্রতিটি হোটেলে কী কী সেবা থাকতে হবে ও সেগুলোর জন্য কী পরিমাণ জনবল থাকতে হবে বিধিমালায় তা অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

সম্প্রতি এক প্রজ্ঞাপন নতুন সব শর্ত জুড়ে দেয়া হয়। এতে ক্যাটাগরি অনুয়ায়ী প্রতিটি হোটেলে কয়টি কক্ষ থাকতে হবে এবং কক্ষের আয়তন কত হবে তা সুনির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে।

গত ৩০ মে জারি করা ওই নতুন বিধিমালায় বলা হয়েছে, এক তারকা মানের হোটেলের মোট কর্মচারীর ১০ শতাংশ, দুই তারকা হোটেলের কর্মচারীর ২০ শতাংশ, তিন তারকা হোটেলের ৩০ শতাংশ, চার তারকা হোটেলের ৪০ শতাংশ ও পাঁচ তারকা হোটেলের কর্মচারীর ৫০ ভাগ সরকার স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হতে হবে।

কক্ষের বিষয়ে প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে এক তারকা হোটেলে কমপক্ষে ১০টি কক্ষ থাকতে হবে। দুই তারকার ক্ষেত্রে তা ৩০টি, তিন তারকার ক্ষেত্রে ৫০টি, চার তারকার ক্ষেত্রে ৭৫টি ও পাঁচ তারকা হোটেলের ক্ষেত্রে কমপক্ষে ১০০টি কক্ষ থাকতে হবে।

ছাড়া দুই তারকা হোটেলের মোট কক্ষের কমপক্ষে ২০ ভাগ, তিন থেকে পাঁচ তারকা পর্যন্ত হোটেলগুলোর সব কক্ষ ও কমন স্পেসে এয়ারকন্ডিশনিং ও হিটিং ব্যবস্থা থাকতে হবে। সেই সঙ্গে তিন, চার ও পাঁচ তারকা হোটেলে হেয়ার ড্রায়ার, ওভেন ও সমজাতীয় অন্যান্য ব্যবস্থা, ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ডে বিল দেয়ার ব্যবস্থা, বুফে ব্যবস্থায় সকালের নাশতা, দুপুর ও রাতের খাবার ও মিনি রেফ্রিজারেটর (ছোট ফ্রিজ), প্রতিটি কক্ষে সার্বক্ষণিক ঠাণ্ডা ও গরম পানির ব্যবস্থা রাখার কথা বলা হয়েছে।

পাশাপাশি এক তারকা থেকে পাঁচ তারকা পর্যন্ত সব হোটেলে সেবার তালিকা ও সেবার মূল্য প্রদর্শন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে আরও উল্লেখ করা হয় এক তারকা হোটেলের নিজস্ব পার্কিং ব্যবস্থা থাকতে হবে। দুই তারকা হোটেলে কমপক্ষে ১০টি, তিন তারকার ক্ষেত্রে ৫০টি, চার তারকায় ৭৫টি ও পাঁচ তারকার ক্ষেত্রে কমপক্ষে ১০০টি গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা থাকতে হবে।

দুই তারকা মানের হোটেলে ইন্টারনেট সংযোগ থাকতে হবে। তিন, চার ও পাঁচ তারকা হোটেলে কনফারেন্স কক্ষসহ প্রতিটি কক্ষে ও উন্মুক্ত স্থানে ওয়াইফাইসহ তারযুক্ত ইন্টারনেট সংযোগ, ফ্যাক্স, ফটোকপিয়ার, প্রিন্টার, স্ক্যানারসহ বিজনেস সেন্টার থাকতে হবে। এসব হোটেলের নিজস্ব ওয়েবসাইট, অনলাইন রিজার্ভেশন ব্যবস্থা থাকতে হবে।

এ বিষয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের হোটেল-মোটেলের দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত সচিব মিজানুর রহমান বলেন, নীতিমালা থাকলেও দীর্ঘদিন তা আপডেট করা হয়নি। সম্প্রতি নীতিমালা আপডেট করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক মানের হোটেলগুলোর সেবার মান হোটেল ও রেস্তোরাঁ ব্যবসার আন্তর্জাতিক সংগঠন ঠিক করে থাকে। এর বাইরে স্থানীয় যেসব হোটেল ও রিসোর্ট দেশে চালু রয়েছে সেগুলোর মান সরকার এ নীতিমালার মাধ্যমে ঠিক করে। আন্তর্জাতিক মানকে ভিত্তি ধরে এবং দেশের সংশ্নিষ্ট খাতের ব্যবসায়ীদের মতামত নিয়ে এ নীতিমালা করা হয়েছে।

আজ সারাবেলা/সংবাদ/সিআ/ফিচার

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.