আগে ভেবে পথ বের করে তারপর রিক্সা বন্ধ করতে হবে

ব্যরিস্টার শাহ আলী ফরহাদ

রিক্সা পুরোপুরি উঠে যাওয়া সময়ের ব্যাপার। কারণ কোনো আধুনিক শহরেই নন মেকনাইজড তিন চাকার বাহন নেই, থাকতে পারেও না। বাইসাইকেলের বিষয়টি অবশ্য ভিন্ন। তাই আমাদেরকেও এই “ফ্যাক্ট” মেনে নিতে হবে। কিন্তু তার আগে আমাদেরকে অবশ্যই রিক্সা ব্যবহারকারী ও চালকদের বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে।

গত ৫ মাস সরকারি গাড়ি পাচ্ছি ঠিকই, কিন্তু আমার পরিবারের কোনো প্রাইভেট কার নেই। এমনকি আমার মাকেও নিয়মিত রিক্সায় চড়তে হয়। জানুয়ারি মাসের আগে টানা ৫ বছর কর্মস্থল থেকে আসা যাওয়া আমার রিক্সায়।

হাঁটলে আসলেই শরীর ভালো থাকে। কিন্তু হাঁটার পরিবেশ কি আমরা নাগরিকদের জন্য নিশ্চিত করতে পেরেছি? ফুটপাথ এখনো অনেক এলাকাতেই দখল, পথচারীদের রাস্তায় নেমে হাটতে হয়। খোলা ড্রেন ও ভাঙা টাইলস এর কারণে ফুটপাথে হাঁটা হয়ে যায় অবস্টাকল কোর্সের মতন। মেয়র মহোদয়দের অবশ্যই এই বিষয়গুলো এড্রেস করেই তারপর মানুষকে হাঁটার উপদেশ দিতে হবে।

দ্বিতীয়ত, রিক্সা চালকদের বিকল্প কর্মসংস্থানের জন্য মধ্য মেয়াদি ও দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনা দরকার। নগর পিতারা রিক্সা বন্ধ করে এটা ভাবলে হবে না। আগে ভেবে পথ বের করে তারপর রিক্সা বন্ধ করতে হবে। শুধুমাত্র ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনেই হাজার হাজার চতুর্থ শ্রেণীর নিয়োগ দেয়া হয়। সেখানে রিক্সা চালকদের অগ্রাধিকার দেওয়া যেতে পারে।

লেখকঃ প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ও আইনজীবি।

আজ সারাবেলা/সংবাদ/সাআ/মত প্রকাশ

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.