বলিউডে গোবিন্দের চলচ্চিত্রে সিমলা

সমাধি’ চলচ্চিত্রের শুটিংয়ে গোবিন্দ-শিমলা।ছবি: সংগৃহিত

সারাবেলা রিপোর্ট: বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা ও প্রযোজক গোবিন্দের নিজস্ব প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের পরবর্তী চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত চিত্রনায়িকা শামসুন নাহার শিমলা।

বুধবার মুম্বাই থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ‘ম্যাডাম ফুলি’ খ্যাত এ চিত্রনায়িকা।

এর আগে গোবিন্দের বিপরীতে ‘সমাধি’ নামে কলকাতার বাংলা একটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন শিমলা। শিমলার নতুন চলচ্চিত্রটি নির্মাণ হবে হিন্দি ভাষায়; ছবিটি গোবিন্দ প্রযোজনা করলেও তিনি অভিনয় করবেন কি না তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। চলচ্চিত্রটির চিত্রনাট্যের কাজ এগিয়ে চলেছে। এর আগে অল্প বাজেটের দুয়েকটি হিন্দি চলচ্চিত্রে অভিনয় করলেও বলিউডে এটিই হবে তার ক্যারিয়ারের বিগ বাজেটের চলচ্চিত্র।

“গোবিন্দদা’র সঙ্গে আগেও কাজ করেছি আমি। আমাদের আগের ছবিটি ফ্লপ হয়েছিল সেকারণে হিন্দি চলচ্চিত্রটি নিয়ে ভালোভাবে পরিকল্পনা করছি। উনার সঙ্গে আমার কথাবার্তা চূড়ান্ত হয়েছে। সবকিছু ঠিকঠাক করে শিগগিরই শুটিংয়ের তারিখ জানানো হবে।”

বাংলাদেশি অভিনেত্রী হিসেবে হিন্দি ভাষায় কাজের ক্ষেত্রে ‘ভাষাগত’ জটিলতা কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করছেন বলে জানান তিনি।

“কোর্স করে হিন্দি ভাষাটা রপ্ত করেছি। এখনও পুরোপুরি পারি না; চালিয়ে নেওয়া যায় আরকি। তাছাড়া কাজের জায়গাটা প্রায় একই রকম। আমাদের অভিনয়ই তো করতে হয়।”

২০১৮ সালের শুরুর দিকে দেশ ছেড়ে ভারতে থিতু হওয়ার চেষ্টা করেন শিমলা। শুরুর দিকে কয়েকমাস কলকাতায় কাটিয়ে বর্তমানে মুম্বাইয়ের একটি ভাড়া ফ্লাটে বাস করছেন তিনি। মুম্বাইয়ের চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রিতে নিজের পায়ের তলার মাটি শক্ত করতে বলিউডের ‘সফর’ নামে একটি চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন তিনি। ছবিটি পরিচালনা করেন বলিউডের তরুণ পরিচালন অর্পণ রায় চৌধুরী।

অর্পণ বলেন, “ছবির শুটিং শেষ হয়েছে। কয়েকমাস আগে শিমলা ডাবিংও শেষ করেছেন। পোস্টার ডিজাইনিং শেষে বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসবে ছবিটি পাঠানোর পরিকল্পনা করছি।”

এর বাইরে বলিউডের সংগীতশিল্পী বাপ্পী লাহিড়ীর আরেকটি হিন্দি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য প্রাথমিক কথাবার্তা হয়েছে বলে জানালেন মুম্বাইয়ের মীরা রোডের বাসিন্দা শিমলা।
“বাপ্পী লাহিড়ী এখন আমেরিকায় আছেন। উনি দেশে ফিরলে ছবিটি নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে আসা যাবে। ওই ছবিটি নিয়েও আমি দারুণ আশাবাদী।”

বলিউডে ক্রমেই ব্যস্ত হয়ে উঠা এ অভিনেত্রীকে ঢাকার চলচ্চিত্রে কবে দেখা যাবে?

ঝিনাইদহের শৈলকুপার মেয়ে বললেন, “বাংলাদেশে আমার সব আছে। ভালো কোনো চলচ্চিত্রের অফার পেলেই দেশে ফিরব। অন্যথায় আপাতত দেশের ফেরার কোনো পরিকল্পনা নেই।”

মুম্বাইয়ে পাড়ি জমানোর আগে তরুণ পরিচালক রুবেল আনুশের ‘নিষিদ্ধ প্রেমের গল্প’ নামে একটি চলচ্চিত্রের কাজ শেষ করেছেন। আরেক নির্মাতা রশিদ পলাশের ‘নাইওর’ নামে আরেক চলচ্চিত্রেও অভিনয় শুরু করেছিলেন এ অভিনেত্রী। কিন্তু প্রযোজকের অভাবে ছবিটি এখনও সম্পন্ন হয়নি বলে জানালেন তিনি।

“তবে ছবিটির জন্য পরিচালক এখনও আমাকে ‘না’ বলেননি। ফলে আনুষ্ঠানিকভাবে ছবিটি এখনও ছাড়িনি।”

১৯৯৯ সালে শহীদুল ইসলাম খোকন পরিচালিত ‘ম্যাডাম ফুলি’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে বড়পর্দায় অভিষেক হয় তার। প্রথম ছবিতেই শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান তিনি। পরে ‘গঙ্গাযাত্রা’, ‘নেকাব্বরের মহাপ্রয়াণ’সহ বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি।

আজসারাবেলা/সংবাদ/রই/বিনোদন

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.